একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন :  সাংবাদিকদের সাথে মৌলভীবাজার-৪ আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হাজী মুজিবের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

ডিসেম্বর ৮, ২০১৮, ১০:৫৩ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৯৪ বার পঠিত

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥  একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মৌলভীবাজার-৪ (শ্রীমঙ্গল-কমলগঞ্জ) আসনের বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আলহাজ্ব মুজিবুর রহমান চৌধুরী (হাজী মুজিব) মাঠ পর্যায়ে নির্বাচনী প্রচারনার সময় নানা প্রতিকুলতার সম্মুখীন হচ্ছেন বলে অভিযোগ করছেন। শঙ্কা প্রকাশ করে শনিবার ৮ ডিসেম্বর বেলা সাড়ে ১২টায় কমলগঞ্জ উপজেলার খুশালপুর গ্রামের নিজ বাড়িতে বিএনপি মনোনীত প্রার্থী হাজী মুজিব দলীয় সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিতব্য এই নির্বাচনে এসব প্রতিকুলতা সঠিকভাবে গণ মাধ্যমে তুল ধরার আহ্বান জানাতে কমলগঞ্জে কর্মরত সাংবাদিকদের সাথে এক মত বিনিময় সভা করেন।

কমলগঞ্জ পৌরসভার কাউন্সিলর ও পৌর যুবদল আহ্বায়ক সৈয়দ জামাল হোসেনের সঞ্চালনায় শুরুতেই বক্তব্য রাখেন কমলগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো. দুরুদ আহমদ। এর পর বিএনপি মনোনীত প্রার্থী মুজিবুর রহমান চৌধুরী (হাজী মুজিব) বলেন, তিনি প্রথম ২০০১ সালে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মৌলভীবাজার-৪ আসনে প্রতিদ্বন্ধিতা করেছিলেন। সেই থেকে দীর্ঘ ১৮ বছর ধরে তিনি ক্ষমতাসীন আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী নেতা ও প্রশাসন দ্বারা নানাভাবে নির্যাতিত হয়েছেন। রাজধানী ঢাকা, কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গল থানায় তার উপর ৭৬টি মামলা দায়ের করা হয়। এর মাঝে কিছু মামলা থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। আর বাকীগুলিতে তিনি জামিনে আছেন। তিনি টানা ১৮ বছর ধরে কমলগঞ্জ ও শ্রীমঙ্গল উপজেলার মানুষের সেবায় কাজ করেছেন। গত ২০১৪ সালের নির্বাচনে এ আসনে আওয়ামীলীগের প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্ধীতায় নির্বাচিত হওয়ায় গত ১০ বছর ধরে এ এলাকার ভোটাররা তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করতেও পারেনি। এবার একাদশ সংসদ নির্বাচনে তার নির্বাচিত হওয়ার সম্ভাবনা খুবই বেশী বলে মাঠ পর্যায়ের তথ্য নিয়ে তিনি জেনেছেন। দলীয় সিদ্ধান্ত অনুযায়ী যতনই প্রতিবন্ধকতা, প্রতিকুলতা ও নির্যাতন হোক তার পরও তিনি নির্বাচনের মাঠে থাকবেন। ইতিমধ্যেই নানাভাবে মাঠে তার নেতা কর্মীদের হুমকি প্রদর্শণ করা হচ্ছে। তিনি কোন বর্ধিত সভাও করতে পারছেন না। পুলিশের পক্ষ থেকে তাকে নানাভাবে বাঁধা প্রদান করা হচ্ছে। এজন্য তিনি দলীয় হাই কমান্ডের মাধ্যমে শ্রীমঙ্গল থানার ওসি মো. নজরুল ইসালাম, কমলগঞ্জ থানার এ এসআই আব্দুল হামিদসহ দুইজন এ্এসআই এর বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছেন বলেও জানান।

তিনি আরও বলেন, ১০ ডিসেম্বরের পর থেকে তার নির্বাচনী প্রচারনায় প্রশাসনসহ আওয়ামী প্রতিবন্ধকতা, প্রতিকুলতা ও জুলম শুরু হতে পারে। এই আশঙ্কা প্রকাশ করে সাংবাদিকদের আহ্বান জানান, তারা যেন নির্বাচনী মাঠের এসব সমস্যা গণ মাধ্যমে তুলে ধরেন। সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে কমলগঞ্জ উপজেলা বিএনপির সভাপতি মো: দুরুদ আহমদ, সাধারন সম্পাদক মো: আবুল হোসেন, কমলগঞ্জ পৌর যুবদলের আহ্বায়ক পৌর কাউন্সিলর সৈয়দ জামাল হোসেন ও শ্রীমঙ্গল উপজেলা যুবদলের সভাপতি মহিউদ্দীন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”