কমলগঞ্জের ভানুবিলে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে আপত্তি, এলাকায় উত্তেজনা

নভেম্বর ১৩, ২০১৭, ১১:৪৬ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ১০৮ বার পঠিত

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥ কমলগঞ্জ উপজেলার আদমপুর ইউনিয়নের ভানুবিল গ্রামে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে মেজর পরিচয়ে সেনা বাহিনী সদস্য ও পরিবারের আপত্তির মুখে এলাকায় নতুন বিদ্যুৎ নির্মাণের কাজ বন্ধ হওয়ায় এলাকায় উত্তেজনা দেখা দেয়। মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জিএম ও কমলগঞ্জ থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিষয়ের সুরাহা করা হলে পুনরায় বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণের কার্যক্রম শুরু হয়।
১৩ নভেম্বর সোমবার সকালে সরেজমিনে গেলে এই উত্তেজনা দেখা দেয়। স্থানীয় এলাকাবাসী জানান, এলাকার গরীব নিরীহ সাধারণ মানুষের বিদ্যুৎ সুবিধার আওতায় নিয়ে আসতে ভানুবিল গ্রামে শুণ্য দশমিক ৭৫১ কি.মি. বৈদ্যুতিক লাইন নির্মানের কাজ শুরু হয়। গ্রামের মাসুদ রানা সেনাবাহিনীর মেজর পরিচয়ে এবং তাঁর মা সামসুন্নাহার বেগম তাদের জমির উপর দিয়ে এলাকায় বিদ্যুৎ লাইন নেয়া যাবে না বলে আপত্তি দেন। মাসুদ রানা প্রশাসনের বিভিন্ন পর্যায়ে যোগাযোগ করে প্রভাব বিস্তার করেন। তবে তাদের জমি বাদ দিয়ে পার্শ্ববর্তী স্থানের উপর দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণের চেষ্টা করা হলেও সেনাবাহিনী পরিবার সদস্যরা আপত্তি দেন। বিষয়টি সুরাহা করতে উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার শিবু লাল বসু প্রকৌশলীদের নিয়ে সোমবার সকালে ঘটনাস্থলে আসেন। এ সময়ে কমলগঞ্জ থানার এসআই ফরিদের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দলও ঘটনাস্থলে আসেন। সংশ্লিষ্টরা ঘটনাস্থলে আসার পর সেনাবাহিনী মেজর পরিবার সদস্যের জমির উপর দিয়ে বৈদ্যুতিক খুঁটি ও তার যাচ্ছে না বলে দুই পক্ষকে নিয়ে আলোচনা করে পুনরায় কাজ শুরু হয়।
স্থানীয় ইউপি সদস্য কে, মনিন্দ্র কুমার সিংহ বলেন, নতুন বিদ্যুৎ লাইন নির্মানে সেনাবাহিনীর মেজর ও তাঁর পরিবার সদস্যদের আপত্তির বিষয়টি স্থানীয়ভাবে সমাধা করে তাদের জমির উপর থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছে। এরপরও আবার আপত্তি দেয়ায় শত শত পরিবার সদস্যদের বিদ্যুৎ সুবিধা পেতে ভোগান্তি সৃষ্টি করা হচ্ছে। এই কাজটি সরকারের উন্নয়নমুলক কাজ থাকায় সবার সহযোগিতা প্রয়োজন।
অভিযোগ বিষয়ে সেনাবাহিনীর মেজর মাসুদ রানার মা সামসুন্নাহারের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি শারীরিক অসুস্থ্যতাজনিত কারণে কিছু বলতে রাজি হননি। তবে মাসুদ রানার ছোট ভাই কয়সর মিয়া বলেন, আমাদের জমির উপর দিয়ে বিদ্যুৎ লাইন না নেওয়ার জন্য আপত্তি জানানো হয়েছে। সুন্দরভাবে লাইন নির্মানে আমাদের আপত্তি নেই।
কমলগঞ্জ থানার এসআই মো. ফরিদ বলেন, আইন শৃংখলা রক্ষার জন্য এসপি স্যারের নির্দেশে আমি ভানুবিল গ্রামে আসি। এখন বিষয়টি সুরাহা হওয়ায় বিদ্যুৎ লাইন নির্মাণে আর কোন সমস্যা নেই।
মৌলভীবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির জেনারেল ম্যানেজার শিবু লাল বসু বলেন, আরইবির চেয়ারম্যান মহোদয়ের নির্দেশে আমি ঘটনাস্থলে আসি। তবে দু’পক্ষের সাথে কথা বলে বিষয়টির সমাধা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন