কমলগঞ্জে আলোর বাতিঘর আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন স্কুল

জানুয়ারী ৭, ২০১৯, ৬:৪৩ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ১১৬ বার পঠিত

প্রনীত রঞ্জন দেবনাথ॥ মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলা সদরের প্রাণ কেন্দ্রে ২০০১ সালে স্থাপিত হয় আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন স্কুল। হাঁটিহাঁটি পা পা করে সফলতার দেড় যুগ পেরিয়ে আধুনিক শিক্ষায় মানসম্পন্ন বিকাশে এক ধাপ এগিয়ে কমলগঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে রুপ নিয়েছে এ বিদ্যাপীঠ। আধুনিক ও উন্নত শিক্ষার পরিবেশ বজায় রাখতে ২০১৯ সালে জানুয়ারী থেকে পাঠদান শুরু হয়েছে শিফট পদ্ধতিতে। প্লে-গ্রুপ হতে পঞ্চম শ্রেণী পর্যন্ত চালুকৃত আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন মাত্র ২৩ জন শিক্ষার্থী নিয়ে যাত্রা শুরু হলেও বর্তমানে প্রায় আড়াইশত ছাত্রছাত্রী অধ্যয়নরত। যাত্রা শুরুর পর থেকেই অসামান্য অবদান রেখে চলেছে নিজ এলাকায়। শিক্ষা জাতির মেরুদন্ড। শিক্ষিত জাতি ছাড়া পৃথিবীতে মাথা উচুঁ করে দাঁড়ানো সম্ভব নয়।

সঙ্গত কারনেই প্রত্যেক শিশুকে শিক্ষার আওতায় নিয়ে আসা যেমন সরকারের দায়িত্ব তেমনি সমাজের প্রত্যেক নাগরিকেরও অবশ্য করনীয় একটা কাজ। এরই ধারাবাহিকতাই প্রতিটা পরিবারে শিক্ষার আলো ছড়িয়ে দেওয়ার লক্ষ্যে নিজ উদ্যোগে কমলগঞ্জের প্রাণ কেন্দ্র কলেজ রোডে নছরতপুর গ্রামের বিশিষ্ট সমাজসেবক ব্যাংকার মোঃ সালাহ উদ্দীন তার মা মরহুম আম্বিয়া খাতুনের নামে স্কুলটি প্রতিষ্টা করেন।

২০০১ ইং প্রতিষ্ঠাকাল থেকে একটি শাখা নিয়ে কাজ করলেও চলতি বছর জানুয়ারী হতে এক সাথে দু’টি শাখা নিয়ে কাজ করতে যাচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। শিক্ষার মান প্রসারে সৃজনশীলতার আঙ্গীকে অভিজ্ঞ শিক্ষক-শিক্ষিকা দ্বারা দীর্ঘ দেড় যুগ ধরে সেবা দিয়ে যাচ্ছে মেধাবী সুবিধা বঞ্চিত শিশুদের মাঝেও। শিক্ষার পাশাপাশি প্রতিটি কার্য দিবসসহ সাংস্কৃতিক আঙ্গীনায়ও পিছিয়ে নেই স্কুলের ছাত্রছাত্রীরা। স্কুলের লেখাপাড়ার বাহিরেও শিক্ষাসফর, মা সমাবেশ, ক্লাস পার্টি, বার্ষিক মিলাদ, সরস্বতী পুজা,  বার্ষিক ক্রীড়া অনুষ্টান ও জাতীয় দিবসগুলো পালন করা হয়। ভালো ফলাফলের পাশাপাশি প্রতিবছর কমলগঞ্জ উপজেলায় শতভাগ পাসের পাশাপাশি প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ১৪/১৫জন শিক্ষার্থী এ+ পেতে সক্ষম হয়। কমলগঞ্জের সর্বত্র মানুষের শিক্ষার অন্যতম শিক্ষা প্রতিষ্টান হিসাবে সুনাম অর্জন করতে সক্ষম হয়েছে। অভিভাবক ও ম্যানেজিং কমিটির সম্বন্মিত প্রচেষ্টায় আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন দিন দিন এগিয়ে যাচ্ছে।  কমলগঞ্জ উপজেলার বি এ এফ শাহীন স্কুলের পরই এলাকাবাসী আম্বিয়া কে,জি স্কুলের  অবস্থান মনে করেন । বিগত সময়ে ৫ম শ্রেনী উত্তীর্ণ একজন শিক্ষার্থীও ঝড়ে পড়ার কোন নজির নেই। সবাই ভাল স্কুলে সুযোগ পেয়েছে।

প্রতিষ্ঠানটি সম্পর্কে অভিভাবকরা জানান, শুধু প্রতিষ্ঠান নয়, উক্ত প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক শিক্ষিকা তাদের সাধ্যমতো খুবই যতœ সহাকারে স্কুলের সকল শিক্ষার্থীকে সৃজনশীলতার আঙ্গীকে নিত্য নতুনভাবে শিখিয়ে যাচ্ছেন। তারা আরও জানান, শিক্ষার পাশাপাশি নৈতিক শিক্ষার উপরও বেশ জোড় দেয় প্রতিষ্ঠানটি। সকল অভিভাবকই প্রতিষ্ঠানের সফলতা কামনা করেন।

স্কুলটিতে সরকারী সকল নিয়ম কানুন মেনে শিক্ষা কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। ১১ সদস্য বিশিষ্ট স্কুল পরিচালনা কমিটি রয়েছে। কমিটিতে জেলা পরিষদ সদস্য ও পৌরসভার মেয়রসহ গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ রয়েছেন। বিশিষ্ট গবেষক ও লেখক আহমদ সিরাজ সভাপতি হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তাদের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে স্কুলটিকে একটি মডেল স্কুলে পরিণত করতে দিনরাত কাজ করে চলেছেন।

কমলগঞ্জ প্রেসক্লাব সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, আধুনিক ও যুগোপযোগী মানসম্মত পাঠদানে আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন স্কুল একটি মডেল স্কুলে পরিণত হয়েছে এলাকাবাসীর কাছে। শিক্ষকদের আন্তরিক পাঠদান ও অভিভাবকদের মনিটরিং এর কারণে দিন দিন এ প্রতিষ্ঠানের সুনাম ছড়িয়ে পড়ছে।

আম্বিয়া কিন্ডার গার্টেন স্কুলের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মমতা রানী সিনহা বলেন, স্কুলটি প্রতিষ্টার পর হতে নানা প্রতিকুলতাকে ডিঙ্গিয়ে আজ সুনামের সাথে লেখাপড়া চলছে। এটা সম্ভব হয়েছে অভিভাবক ও স্কুলের সাথে জড়িত সংশ্লিষ্টদের আন্তরিকতা ও সমন্বয়নের কারনে। আমরা চেষ্টা করছি উন্নত ও আধুনিক শিক্ষায় ছাত্রছাত্রীদের গড়ে তুলতে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”