কুলাউড়ায় অগ্নিকান্ডে বসতঘর পুড়ে ছাই ॥ চেয়ারম্যানের পরিদর্শন

নভেম্বর ৫, ২০১৭, ৭:৩৯ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ১৬০ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধি॥ কুলাউড়া উপজেলার হাজীপুর বিলেরপার গ্রামে সবজান বিবির বাড়িতে শুক্রবার ৩ নভেম্বর রাত সাড়ে দশটায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে এলাকার লোকজন এসে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে না পারায় বসত ঘরটি ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়। ঘটনার দিন স্থানীয় ইউপি সদস্য গোলজার ও গতকাল রবিবার (০৫ নভেম্বর) অগ্নিকান্ডস্থল পরিদর্শন করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্ছু। এছাড়াও কুলাউড়া নির্বাহী কর্মকর্তা পরিদর্শন করবেন বলে জানা গেছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, বসতভিটার মালিক সবজান বিবি অসুস্থ থাকায় ১৫দিন যাবত সিলেট উচমানী মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসায় থাকায় বাড়ীর ঘর ছিল তালা বন্ধ। শুক্রবার রাত সাড়ে দশটায় সবজান বিবির তালাবদ্ধ ঘরে বৈদ্যতিক সর্টসার্কিট থেকে সূত্রপাত হয়ে মূহুর্তেই পুরো ঘর আগুন ছড়িয়ে পড়ে সম্পূর্ণ ঘর বিধ্বস্ত হয়। মুর্হতে আগুন ছড়িয়ে পড়ায় এলাকার লোকজন ভয়াবহ আগুন নিয়ন্ত্রনে আনতে না পারায় নগদ টাকাসহ মূল্যবান জিনিসপত্র পুড়ে প্রায় ৬০ লক্ষ টাকার ক্ষয়ক্ষতি সাধিত হয়। খবর পেয়ে স্থানীয় জনসাধারণের সহযোগিতায় পার্শ্ববর্তী বাড়িঘরগুলো রক্ষা পেলেও সবজান বিবির পরিবারের বসবাসকৃত জাহাঙ্গির আলম, আলমগীর হোসেন, সুপিয়া বেগমের বসতঘর সম্পূর্ণ পুড়ে যায়।


খবর পেয়ে অগ্নিকান্ডস্থল পরিদর্শন করেন স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্ছু। এসময় তাদের খোজখবর নিয়ে নগদ আর্থিক সহযোগিতা করেন। এবং ঘটনাস্থল উপস্থিত থেকে কুলাউড়া নির্বাহী কর্মকর্তাকে অবগত করে পরবর্তী সাহায্যর জন্য ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারকে আশ্বাস দিয়ে গেছেন চেয়ারম্যান বাচ্ছু। বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার খোলা আকাশের নিছে বসবাস করছে সরজমিন গিয়ে দেখা যায়।
হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল বাছিত বাচ্ছু বলেন, আগুনে বাড়ি পুড়ে যাওয়া পরিবারটি একেবারে নিঃস্ব হয়ে গেছে। আরও বেদনাদায়ক ঘটনা হচ্ছে, সবজান বিবির তথ্য শুনে নিকট আত্মীয়, ব্যাংক ও সমিতি থেকে ধার দেনা করে আনা নগদ ১ লাখ ২০ হাজার টাকাও আগুনে পুড়ে গেছে। সব মিলিয়ে পরিবারের প্রায় দুই লাখ টাকার ক্ষতিসাধন হয়েছে। তিনি বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবার যাতে পুনরায় মাথা গোঁজার ঠাই নিয়ে বেঁচে থাকতে পারে সেইজন্য প্রশাসনের সাথে আলাপ করে দ্রুত সহায়তা পেতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। এব্যাপারে কুলাউড়া নির্বাহী কর্মকর্তা চৌধুরী মোহাম্মদ গোলাম রাব্বি বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারে তথ্য জেলা প্রশাসক বরাবর প্রেরণ করা হবে এবং ইতি মধ্যে ত্রানের ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন