কুলাউড়ায় ঘুষ গ্রহণকালে রেলওয়ে ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী (পথ) এরফান দুদকের হাতে আটক

জুলাই ৪, ২০১৮, ১০:৩০ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ২২৪ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধি॥ বাংলাদেশ রেলওয়ের কুলাউড়া সেকশনের ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী (পথ) মোহাম্মদ এরফানুর রহমানকে ঘুষের টাকা নেয়ার সময় হাতেনাতে আটক করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার নাওঘাট গ্রামের আব্দুল লতিফের পুত্র।

৪ জুলাই বুধবার বিকেলে তাকে আদালতে সোপর্দ করলে বিলম্ব জনিত কারণে সময় মতো আদালত হাজির করতে না পারায় তাকে কারাগারে প্রেরণ করা হয় বলে জানান দুদকের আইজীবি এডভোকেট চাঁদ মুরারী সিংহ।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে কুলাউড়া রেল স্টেশনের স্টেশন মাস্টারের রুমে রেলওয়ের এক কর্মচারীর কাছ থেকে ঘুষ গ্রহনের সময় তাকে আটক করে দুদক টিম। এরপর রাতে কুলাউড়া রেলওয়ে থানায় এরফানকে হস্তান্তর করে দুদক টিম।

দুদক হবিগঞ্জ জেলা সম্মলিত জেলা কার্যালয়ের উপ-পরিচালক মলয় কুমার সাহা জানান, এরফানুর রহমান ৫ বছর আগে রেলওয়ের কুলাউড়া সেকশনের ঊর্ধ্বতন সহকারী প্রকৌশলী (পথ) হিসেবে যোগদান করেন। কুলাউড়ায় যোগদান করেই শুরু করেন ঘুষ বানিজ্য। তাঁর অধিনস্থ সকল কর্মচারীর কাছ থেকে বিভিন্ন দূর্বলতা সুযোগ নিয়ে জিম্মি করে ঘুষ আদায় করতেন।

মঙ্গলবার সন্ধ্যায় তাঁর অধিনস্তকর্মচারী রেলের ওয়েম্যান আবুল হোসেনের কাছ থেকে ঘুষ (মাসোহারা) ১০ হাজার টাকা গ্রহনের সময় দুদক হবিগঞ্জ জেলা সম্মলিত জেলা কার্যালয়ের উপ পরিচালক মলয় কুমার সাহা’র নেতেৃত্বে ৫ সদস্যের একটি দল গোপন সংবাদের সময় অভিযান চালিয়ে তাকে হাতেনাতে আটক করেন।

দুদক উপ-পরিচালক মলয় কুমার সাহা জানান, এরফান দীর্ঘ দিন থেকে তার অধিনস্ত কর্মচারীদের কাছ থেকে ঘুষ ও মসোহারা আদায় করতেন। তাকে হাতেনাতে গ্রেফতার করে কুলাউড়া রেলওয়ে থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

কুলাউড়া রেলওয়ে থানার ওসি আব্দুল মালেক জানান, দুদক কর্মকর্তারা এরফানুর রহমানকে রেলওয়ে থানায় হস্তান্তর করে দিয়ে গেছেন।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”