জুড়ীর জিয়া খাল খননের কোনো উদ্যোগ নেই

ডিসেম্বর ৩০, ২০১৭, ৮:২৫ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৮২ বার পঠিত

জুড়ী প্রতিনিধি॥ জুড়ী উপজেলা সদর জায়ফরনগর ইউনিয়নে অবস্থিত জিয়া খাল বর্তমান নাম হযরত শাহ্খাকী (রহঃ) খালটি অত্রাঞ্চলের কৃষকদের জমিতে বোরো আবাদে সেঁচের  জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ খাল। এখালের পানি দিয়ে দীর্ঘদিন যাবত কৃষকরা তাদের জমিতে বোরো আবাদ করে আসছেন। আশির দশকে এখালটি খননের পর দীর্ঘ২০ বছর পর পলিতে ভরে যাওয়ায় কৃষকদের জমিতে বোরো আবাদে অনিশ্চিয়তা দেখা দেয়। তখন কৃষকদের দুরাবস্থার কথা চিন্তা করে সরকারের সংশি¬ষ্ট বিভাগ পুনরায় এখালটি খনন করে দিলে তাদের সমস্যার সমাধান হয়। এরপর থেকে  দীর্ঘদিন যাবত কৃষকরা আবার এখালের পানি  দিয়ে বোরো আবাদ করতে থাকেন। ওই সময় কৃষকদের চোখে মুখে আনন্দের বন্যা বইছিলো। কিন্তু সে আনন্দ আর এখন টিকে থাকেনি, বাঁধ সাধে প্রাকৃতিক দূর্যোগ। বিগত ৭মাসের দীর্ঘস্থায়ী বন্যায় ওই খালটি আবার পলিতে ভরে যায়। যার ফলে , ওই খালে পুরোপুরি পানি চলাচল করতে না পারায় কৃষকরা তাদের জমিতে সেঁচ দিতে পারছেনা। বর্তমানে অত্রাঞ্চলের কৃষকরা তাদের জমিতে বোরো আবাদের ব্যাপারে ভাবনায় পড়ে গেছেন । কিভাবে তারা পানির ব্যবস্থা করবেন। খালটি জুড়ী নদীর শাখা নদী কন্টিনালার মুখ থেকে শুরু হয়ে আছরি ঘাট পর্যন্ত প্রায় ৭কিলোমিটার। সরেজমিন গিয়ে কয়েকজন কৃষকের সাথে কথা হলে,তারা নয়া দিগন্তকে জানান, বোরো চাষ করতে এ খালটির  উপর আমরা নির্ভরশীল। এ খালটি পলি মাটি দ্বারা ভরাট হয়েগেছে। সরকার ওই খালটিকে কেটে দেবার দাবি জানাই। পাশাপাশি তারা আরো জানান, খালটি খনন করে কন্টিনালা নদীর মুখে একটি ¯¬ুইচ গেট র্নিমাণ  করে দিয়ে শীত মৌসুমে গেট খুলে দিলে এবং বর্ষা মৌসুমে বন্ধ করে রাখলে  আমরা  জমিতে সুন্দরভাবে বোরো আবাদ করতে পারবো এ ব্যাপারে জুড়ী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা দেবল সরকার এর সত্যতা স্বীকার করে নয়া দিগন্তকে জানান, এখালটি ভরাট হয়ে গেছে। এ খালের পানি দিয়ে  হাকালুকি হাওর পারের প্রায় ২শ হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ  হতো। খালটি ভরাট হয়ে যাওয়ায় পানি প্রবেশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হওয়ায় এবছর জমিতে বোরো আবাদে বিকল্প পন্থায় সেঁচের ব্যবস্থা করে দিচ্ছি। আর খালটি খননের  ব্যাপারে সরকারের সংশি¬ষ্ট বিভাগের উর্ধবতন কর্তৃপক্ষকে অবগত করিয়েছি। আশা করা যায়, শিগ্গরই  খালটি খনন করে দেয়া হবে ।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”