দাবীকৃত ১ লাখ টাকা চাঁদা না দেয়ার জের : বড়লেখায় খাসিয়া পুঞ্জির ৩ হাজার পানগাছ কর্তন : আদালতে মামলা

জানুয়ারী ৯, ২০১৭, ৯:৩৬ অপরাহ্ণ

আবদুর রব॥ বড়লেখা উপজেলার দক্ষিণভাগ ইউনিয়নের ৭নং খাসিয়া পুঞ্জির দুইটি জুমের ৪ লক্ষাধিক টাকার প্রায় ৩ হাজার পানগাছ ও শতাধিক সুপারী গাছ কেটে ফেলেছে সংঘবদ্ধ চাঁদাবাজ চক্র। পানজুমের মালিকের নিকট ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে না পাওয়ায় চাঁদাবাজরা এ কান্ড ঘটিয়েছে। চাঁদা দাবী, হত্যার হুমকি, অপহরণ ও পান-সুপারী গাছ কেটে ক্ষতি সাধনের ঘটনায় সোমবার সিনিয়র জুডিশিয়েল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ভুক্তভোগী সুক খাসিয়া ১৮ চাঁদাবাজের নাম উল্লেখ ও ২০-২৫ জনকে অজ্ঞাত আসামী করে মামলা (মামলা নং-পি-১/১৭) দায়ের করেছেন। আদালতের বিজ্ঞ সিনিয়র জুডিশিয়েল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হাসান জামান মামলাটি আমলে নিয়ে ঘটনার সত্যতা যাচাই পুর্বক ওসি বড়লেখাকে এফআইআর করার নির্দেশ দিয়েছেন।

আদালত সুত্রে জানা গেছে, উপজেলার দক্ষিণভাগ (দ:) ইউনিয়নের নিউ সমনবাগ চা বাগানের মোকাম সেকশনের (রাজনগর) বাসিন্দা শংকর রিকমুন, বাসু রিকমুন, সল্টু গত  কয়েক দিন ধরে ৭নং মাধব পুঞ্জির মৃত বিপুল খাসিয়ার ছেলে সুক খাসিয়ার নিকট ১ লাখ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছে। অন্যতায় তার মালিকানাধীন পানজুমের পানগাছসহ অন্যান্য গাছপালা কেটে ফেলার হুমকি দেয়। চাঁদা না দেয়ায় ক্ষীপ্ত হয়ে রোববার বিকেলে তাদের নেতৃত্বে সহযোগী সন্ত্রাসী সুমন, রমেন, হরেণ, চন্দ্র, প্রদীপ, গনেন্দ্র, রাকেশ রায়, রাজু গংরা সুক খাসিয়ার পানজুমে প্রবেশ করে নির্বিচারে পানগাছ ও সুপারী গাছ কাটতে থাকে। বাঁধা দিতে গেলে দুর্বৃত্তরা জুম মালিক সুক খাসিয়াকে হাত পা বেধে অপহরণ করে নিয়ে যায়। পরে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন তাকে উদ্ধার করেন।

ইউপি চেয়ারম্যান আজির উদ্দিন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে জানান, তিনিসহ পরিষদের পাঁচ সদস্য ও এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিরা ঘটনাস্থলে গিয়ে চাঁদাবাজদের কবল থেকে সুক খাসিয়াকে উদ্ধার করেন।

মাধব পানপুঞ্জির মন্ত্রী (হেড ম্যান/পল্লী প্রধান) ওয়ানবর লংডগিরি জানান, এসব সন্ত্রাসীরা প্রায়ই পানজুমের ক্ষতি সাধন করছে। তাদের চাদা দাবীসহ নানা উৎপাত ও হুমকি ধমকিতে খাসিয়া আদিবাসীরা আতংকিত।

বড়লেখা সিনিয়র জুডিশিয়েল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বেঞ্চ সহকারী একরাম হোসেন সোমবার সন্ধ্যায় পান-সুপারীর গাছ কর্তন ও চাঁদা দাবীর ঘটনায় আদালতে পিটিশন মামলা রুজুর সত্যতা স্বীকার করেন।

মন্তব্য করুন