বিয়ের জন্য দেশে ফিরে ঢাকায় বিমানবন্দর থেকে নিখোঁজ জুড়ীর জাহাঙ্গীর

জানুয়ারী ৯, ২০১৮, ১১:৪৬ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ২৯৮ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধি॥ ইতালির ভেনিস থেকে ৬ জানুয়ারি ঢাকার হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে নামার পর জাহাঙ্গীর হোসেন (২৭) নামের ইতালিপ্রবাসী এক যুবক নিখোঁজ রয়েছেন বলে অভিযোগ তাঁর স্বজনদের। এ বিষয়ে গতকাল সোমবার রাজধানীর বিমানবন্দর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেছেন তাঁরা। নিখোঁজ জাহাঙ্গীর মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলা সদরের উত্তর ভবানীপুর এলাকার বাসিন্দা ব্যবসায়ী আবদুল হাছিবের ছেলে। স্বজনদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী, জাহাঙ্গীর ছয়-সাত বছর ধরে ইতালির ভেনিস শহরে থাকেন। সেখানে তিনি বৈধভাবে বসবাস করছেন। বিয়ের জন্য ৫ জানুয়ারি তিনি এমিরেটস এয়ারলাইনসের একটি বিমানে ভেনিস থেকে ঢাকার উদ্দেশে রওনা দেন।  দুবাই হয়ে ওই ফ্লাইটটি পরদিন ৬ জানুয়ারি সকাল ১০টার দিকে ঢাকার হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছায়। ঢাকা থেকে বাংলাদেশ বিমানের একটি ফ্লাইটে ওই দিন বেলা দেড়টারদিকে সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছার কথা ছিল জাহাঙ্গীরের। স্বজনেরা তাঁকে আনতে ওসমানী বিমানবন্দরেও যান। কিন্তু জাহাঙ্গীর সিলেটে নির্ধারিত ফ্লাইটে পৌঁছাননি। দিনভর সেখানে অপেক্ষা করে স্বজনেরা বাড়ি ফিরে যান।

জাহাঙ্গীরের বড় ভাই জাকির হোসেন বলেন, জাহাঙ্গীরের পাসপোর্ট ও টিকিটের ফটোকপি নিয়ে তাঁরা এমিরেটস এয়ারলাইনসের ঢাকা ও সিলেটের কার্যালয়ে যোগাযোগ করেছেন। সেখান থেকে জাহাঙ্গীরের ঢাকায় শাহজালাল বিমানবন্দরে পৌঁছানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেন এমিরেটসের কর্মকর্তারা। এরপর পরিবারের উৎকণ্ঠা আরও বেড়ে যায়। জাকির হোসেন বলেন, তাঁরা ভেনিসে জাহাঙ্গীরের বন্ধুদের সঙ্গে যোগাযোগ করে জেনেছেন, ৫ জানুয়ারি ভেনিসে বন্ধুরা তাঁকে বিমানবন্দরে পৌঁছে দেন। দুবাই পৌঁছার পর ৫ জানুয়ারি দিবাগত রাত চারটার দিকে তিনি জাকিরের মুঠোফোনে খুদে বার্তা পাঠান। কিছু সময় পর দুবাই থেকে ঢাকায় রওনা দেওয়ার বিষয়টি জানিয়েও একটি খুদে বার্তা পাঠান। জাহাঙ্গীর হোসেনের ভাই জাকির বলেন, তাঁর ভাই জাহাঙ্গীর ভেনিসে অন্য বাংলাদেশিদের মতো ছোটখাটো ব্যবসা করতেন। কোনো রাজনৈতিক দল বা অন্য সংগঠনের সঙ্গে তাঁর সম্পৃক্ততা নেই। তিনি বলেন, ‘বাড়িতে আম্মা-আব্বু খালি কান্নাকাটি করছে। খাওয়াদাওয়া ছেড়ে দিছে। ভাইটা কই আছে জানি না।’ ঢাকার বিমানবন্দর থানার ওসি নূরে আযম মিয়া  বলেন, এ বিষয়ে সোমবার তাঁর থানায় একটি জিডি হয়েছে। পুলিশ বিষয়টি খতিয়ে দেখছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”