বড়লেখায় জামে মসজিদে তালা দেয়া নিয়ে উত্তেজিত মুসল্লিদের থানা ঘেরাও

নভেম্বর ১৩, ২০১৭, ১:২৬ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ২২৩ বার পঠিত

বড়লেখা প্রতিনিধি॥ বড়লেখা উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের বড়থল জামে মসজিদের প্রবেশ গেইটে তালা ঝুলিয়ে দেয়ার ঘটনায় উত্তেজিত মুসল্লিরা ১২ নভেম্বর রোববার দুপুরে থানা ঘেরাও করেছে। থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মদ সহিদুর রহমান তদন্তপুর্বক ঘটনাকারীদের আইনের আওতায় আনার আশ্বাস দিলে ুব্দ মুসল্লিরা ঘেরাও কর্মসুচি প্রত্যাহার করেন। ফজরের নামাজ পড়তে গিয়ে মুসল্লিরা মসজিদে প্রবেশের কলাপসেবল গেটে তালা দেখতে পান। এ ব্যাপারে মসজিদের সাধারন সম্পাদক ও সাবেক ইউপি আলাল উদ্দিন সন্দেহভাজন ব্যক্তিদের আসামী করে থানায় মামলা করেছেন। থানা পুলিশ, মসজিদ কমিটি ও মুসল্লিদের সুত্রে জানা গেছে,বড়থল জামে মসজিদ কমিটির মোতায়াল্লিসহ নেতৃবৃন্দ এবং গ্রামবাসীর মধ্যে স্থানীয় কতিপয় ব্যক্তির মামলা মোকদ্দমা সংক্রান্ত পূর্ববিরোধ চলছিল। গ্রামের সরকারী জলমহাল থেকে পাম্প মেশিনে পানি সেচ না করার ব্যাপারে এসব ব্যক্তিদের বির”দ্ধে জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়। এ অভিযোগে মসজিদের মোতায়াল্লিসহ কমিটির নেতৃব”ন্দ ও গ্রামবাসীর অনেকেই স্বার করেন। এতে প্তি হয়ে প্রতিপরে লোকজন শুক্রবার জুম্মার নামাজ শুর”র পুর্ব ম”হূর্তে মসজিদের মাইক হাতে নিয়ে তাদের বির”দ্ধের লিখিত অভিযোগে মসজিদের মোতায়াল্লী কেন স্বার করলেন জানতে চায়। তার স্বারের কারণেই অন্যরা স্বার করেছে দাবী করে ওই ব্যক্তি দুইদিনের মধ্যে এর সুষ্টু বিচার না করলে সে মসজিদে তালা ঝুলিয়ে দিবে বলে হুমকি প্রদান করে।
১২ নভেম্বর রোববার ভোরে ফজরের নামাজ পড়তে গিয়ে মুসল্লিরা মসজিদে তালা ঝুলতে দেখেন। এতে মুসল্লিদের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। খবর পেয়ে সকাল সাড়ে ৭টায় পুলিশ ঘটনা¯’লে পৌছে তালা ভেঙ্গে মসজিদ খুলে দেয়। মসজিদের মোতায়াল্লি কাজী ফয়েজ আহমদ জানান, বড়থল গ্রামের ভিতরে একটি সরকারী জলমহাল রয়েছে। ৪-৫ ব্যক্তি নিজেদের ইজারাদার দাবী করে অবৈধভাবে পাম্প মেশিনে পানি সেচ কওে মাছ আহরন করে। এতে পানির জন্য কৃষিকাজ ব্যাহত ও লোজজনের তীব্র সমস্যা দেখা দেয়। পানি সেচ না করার জন্য সম্প্রতি জেলা প্রশাসক বরাবরে একটি লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়। তিনিসহ আরো ৩ মসজিদের মোতায়াল্লিগন ছাড়াও অনেকে তাতে স্বার করেন। অভিযুক্ত ব্যক্তিরাই ঘোষণা দিয়ে মসজিদে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। রোববার মুসল্লিগন ফজরের নামাজ মসজিদে পড়তে না পেওে ঠান্ডার মধ্যে আঙিনায় মাটিতে বসে পড়েছে। শিশুদের মক্তবের পড়া বন্ধ রাখতে হয়েছে। এদিকে মসজিদে তালা ঝুলিয়ে দেয়া দুস্ক”তিকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতারের দাবীতে দুপুরে বড়থল জামে মসজিদের মোতায়াল্লি কাজী ফয়েজ আহমদ, কোষাধ্য রাজিদ আলী, সদস্য আবুল আছ, মিনহাজুর রহমান, তাজির উদ্দিন, আলাল উদ্দিন, কামিল হোসেন, ফজলু মিয়া, তাজ উদ্দিন শেখসহ পঞ্চায়েতের দুই শতাধিক মুসল্লি থানা কমপ্লেক্স ঘেরাও করেন। সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা সিরাজ উদ্দিন ও সুজানগর ইউপি চেয়ারম্যান নছিব আলীর উপস্থিতিতে থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ সহিদুর রহমান ঘটনাকারীদের দ্র”ত আইনের আওতায় নিয়ে আসার আশ্বাস দিলে উত্তেজিত মুসল্লিরা ঘেরাও কর্মসুচি প্রত্যাহার করেন। থানার অফিসার ইনচার্জ মুহাম্মদ সহিদুর রহমান রহমান জানান, মসজিদে তালা দেয়া জঘন্য অপরাধ। খবর পেয়েই পুলিশ তালা ভেঙ্গে দিয়েছে। মসজিদের মোতায়াল্লি থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। পুলিশ ঘটনাকারীদের গ্রেফতারের চেষ্টা চালাচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন