শেরপুরে কুশিয়ারা নদীর পাড়ে বসেছে  ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা ॥ উঠেছে  দেড়মন ওজনের বাঘাইর ৩৫ কেজি ওজনের বোয়াল মাছ

জানুয়ারী ১৪, ২০১৯, ৮:১৭ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৭৪ বার পঠিত

বিকুল চক্রবর্তী॥ মৌলভীবাজার প্রতিনিধি: বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম

আগামীকাল মঙ্গলবার হিন্দু সম্প্রদায়ের পৌষ সংক্রান্তী। আর এই পৌষ সংক্রান্তীকে সামনে রেখে মৌলভীবাজারের শেরপুরে কুশিয়ারা নদীর পাড়ে রবিবার রাত থেকে বসেছে প্রায় দুইশত বছরের পুরাতন ঐতিহ্যবাহী মাছের মেলা। একই সাথে জেলার শ্রীমঙ্গল, বড়লেখা ও কমলগঞ্জের একাধিক স্থানে বসেছে  মাছের মেলা। আর এসব  মেলায় উঠেছে এক থেকে দেড়লক্ষ টাকা দামের বাঘাইর মাছ, উঠেছে ৩৫ কেজি ওজনের বোয়াল আর ২০ কেজি ওজনের কাতল মাছ। সিলেট বিভাগের বিভিন্ন হাওড়-নদী থেকে ধরে আনা দেশীয় প্রজাতির এই বড় বড় মাছ সংগ্রহ করতে দেশের বিভিন্ন প্রান্থ থেকে শত শত উৎসুক মানুষ ভীড় করছেন মেলায়।

মৌলভীবাজার সদর উপজেলার শেরপুরের বাসিন্দা নুরুল ইসলাম জানান, মৌলভীবাজারের হাকালুকি, কাওয়াদিঘি, হাইল হাওর ও মনু, ধলই, কুশিয়ারা নদীসহ বৃহত্তর সিলেটের বিভিন্ন হাওর বাওরের  মাছের উপর নির্ভর করে প্রতিবছরই বসে এ মেলা। মেলায় বিক্রির জন্য প্রায় ৫/৬ মাস আগে থেকেই মৎস্য জীবিরা বড় বড় মাছ  সংগ্রহ শুরুকরেন। মাছগুলো বিশেষ ব্যবস্থায় পানিতেই জিয়ে তাজা রাখা হয়।  এদিকে মাছগুলো দীর্ঘ সময় পানিতেই থকার সুবাদে সুযোগ পায় সঠিক প্রজননের।

মেলায় উঠেছেও এক থেকে দেড়মন উজনের দেশীয় । দামও হাঁকানো হচ্ছে এক থেকে দেড় লক্ষ টাকা। আর শুধু এ মাছ কেনা নয় দেখার জন্য বহু উৎসুক জনতাও মেলায় ভীড় করেন।

শেরপুরের মেলার ইজারাদার মো. অলি আহমদ জানালেন এবছর শেরপুরে ১২ কোটি টাকার মাছ বিক্রির টার্গেট রয়েছে। তবে মঙ্গলবার সকাল পর্যন্ত পুরো জেলায় অন্তত ৫০ কোটি টাকার মাছ বিক্রি হবে বলে তারা আশা করেন। আর এ থেকে সরকার পাবে কমপক্ষে পাবে ৭/৮ লক্ষ টাকার রাজস্ব।

আর শ্রীমঙ্গলের মাছের মেলায় মাছ বিক্রেতা হাফিজ মিয়া জানান, মেঘনা নদী থেকে সংগ্রহ করেছেন ৬০ কেজি ওজনের বাঘাইর। যার দাম চাইছেন এক লক্ষ ২০ হাজার টাকা। আর এর দাম হয়েছে ৭০ হাজার টাকা।

একই সাথে মাছ ব্যাবসায়ী মফিজ মিয়া জানান, তিনি ৩৫ কেজি ওজনের ২টি বোয়াল মাছ সংগ্রহ করেছেন যার দাম হাকিয়েছেন ৭০ হাজার করে।

মাছের মেলায় আশা লন্ডন প্রবাসী আশরাফ উদ্দিন জানান, এটি মৌলভীবাজারের মানুষের একটি সংস্কৃতিতে পরিনত হয়েছে। তিনি প্রায় বছরই লন্ডন থেকে এই মাছের মেলা দেখার জন্য আসেন এবারও এসেছেন।

এদিকে এই মাছের মেলা গুলোকে সামনে রেখে জেলা জুরে নেয়া হয়েছে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা জানালেন মৌলভীবাজার সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আশরাফুজ্জামান।

মাছের মেলায় মাছ কিনতে আসা সজল দেব জানান, দাম একটু বেশি হলেও এই মাছের মেলায় হরেক রকমের হাওরের মাছ পাওয়া যায়।

তবে ক্রেতাদের দাবী দেশের বিভিন্ন স্থানে এ জাতীয় মাছের মেলার আয়োজন করলে মাছের সঠিক প্রজনন ও বিলুপ্ত প্রজাতি সংরক্ষনে সহায়ক ভূমিকা রাখবে ।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”