মৌলভীবাজারে বিতরণ করা জাতীয় স্মার্ট কার্ডে জেলার ভুল বানান

আগস্ট ১০, ২০১৮, ১২:২২ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ১,২৫৬ বার পঠিত

আশরাফ আলী॥ দেশের নাগরিকদের উন্নত মানের জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্ট কার্ড) দিচ্ছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। এরই ধারাবাহিকতায় মৌলভীবাজার সদর সহ দেশের আরো ২৭ জেলার নাগরিকদের মধ্যে স্মার্ট কার্ড বিতরণ করছে ইসি। কিন্তু দেখা যায় মৌলভীবাজারে নির্বাচন কমিশনের বিতরণকৃত স্মার্ট কার্ডটি ভুল রয়েছে। প্রতিটি স্মার্ট কার্ডের পেছনে ব্যক্তির ঠিকানায় মৌলভীবাজার জেলার ইংরেজী শব্দের বানানে ভুল রয়েছে। মৌলভীবাজার শব্দের সঠিক ইংরেজী বর্ণ (Moulvibazar) থাকলেও নির্বাচন কমিশনের বিতরণকৃত স্মার্ট কার্ডটিতে রয়েছে (Maulvibazar) । যাহার উচ্চারণ হয় মাউলভীবাজার।
নির্বচান কমিশন (ইসি) থেকে জেলায় ২ লক্ষ ২২হাজার ৮শত ৫২টি স্মার্ট কার্ড প্রিন্ট হয়ে আসছে। যার সব কয়টিতে ইংরেজী শব্দের ভুল বানান রয়েছে। যেখানে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসন, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান এবং স্কুল-কলেজে জেলার নাম Moulvibazar রয়েছে।
দেশের নাগরিকদের উন্নত মানের জাতীয় পরিচয়পত্র (স্মার্ট কার্ডে) কিভাবে ইংরেজী বানানে ভুল হলো এ নিয়ে চলছে জেলা জুড়ে আলোচনা সমালোচনা। নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের এধরণের ভুল নিয়ে সমালোচনার ঝড় উঠেছে।
সচেতন নাগরিকরা বলছেন, নির্বাচন কমিশনে যারা কাজ করছেন তাদের অবহেলার কারণে এধরণের ভূল হয়েছে। সরকারের এত টাকা ব্যয় করে তৈরী করা স্মার্ট কার্ডটিতে জেলার নামে ভুল। একটি জেলার নামের ইংরেজী বানান ভুল এটি মেনে নেওয়া যায় না।
জেলার নাম বানোনে ভূল থাকার বিষয়ে একাধিক স্মার্ট কার্ড গ্রহনকারীরা জানান, নির্বাচন কমিশন এত ঢাকঢোল পিটিয়ে যখন আমাদেরকে স্মার্ট নাগরিক বানিয়ে দিলেন, তখন এই ভুল কেন? নাকি নতুন করে ভোগান্তির শুরু? নাকি আমি স্মার্ট দেশের ‘আনস্মার্ট’ নাগরিক?

জেলা নির্বাচন অফিসার মোঃ মোখলেছুর রহমান বানান ভুলের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, আমরা বিষয়টি নিয়ে ঢাকায় নির্বাচন কমিশনারের কার্যালয়কে অবহিত করেছি।  ঢাকা থেকে যে সিদ্ধান্ত জানায় সে অনুযায়ী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, জেলায় স্মার্ট কার্ড বিতরণের প্রক্রিয়াটি অব্যাহত থাকবে।
জেলার নামের ইংরেজী বানান ভুলের বিষয়ে মৌলভীবাজার পৌর সভার মেয়র মোঃ ফজলুর রহমান জানান, Moulvibazar এর স্থলে Maulvibazar হয়ে গেছে। সংশোধন না হলে প্রতিটা পদক্ষেপে ভোগান্তি পোহাতে হবে এ জেলার মানুষের। এই সকল গুরুত্বপূর্ণ বিষয় কিভাবে কর্তৃপক্ষের দৃষ্টির অড়াল হলো। আগের জাতীয় পরিচয়পত্র গুলো ভুলে ভরা ছিলো এবার সারা জেলাকে ভুল করে দিল ইসি।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”