শ্রীমঙ্গলে ছেলে হত্যার বিচার চান মা মায়া বেগম

মার্চ ১৩, ২০১৯, ১০:২৯ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ২৪ বার পঠিত

শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥ শ্রীমঙ্গলে ছেলে হত্যার বিচার চাইতে গিয়ে আর্তনাদে ফেটে পড়েন নিহতের মা মায়া বেগম। বার বার বলছিলেন ‘ইয়া আল্লাহ গো আমার ছেলে হাসান হত্যার বিচার চাই। এ কান্নার দৃশ্য দেখে কেউ চোখের পানি ধরে রাখতে পারছিলেন না।

১৩ মার্চ বুধবার বিকেলে শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে ছেলের নির্মম হত্যাকান্ডের বর্ণনা দিতে গিয়ে কান্নায় ভেঙে পড়েন তিনি। এসময় তার ছোট ছেলে হাসান মিয়াকে কীভাবে জোরপূর্বক বিষপানে হত্যা করা হয়েছে এবং হাসানের মৃত্যুযন্ত্রণার কথা উল্লেখ করে ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক আসামীদের গ্রেফতার করে ন্যায় বিচার পাওয়ার দাবী জানান তিনি।

নিহত হাসান মিয়ার বড় ভাই সিএনজি অটো চালক জাফর মিয়া লিখিত বক্তব্যে বলেন, গত ৯ ফেব্রুয়ারি সকাল আনুমানিক সাড়ে ১০ টার দিকে উপজেলার রাজঘাট চা বাগানের লাল টিলা বস্তির চৈতন মুন্ডার বাড়িতে প্রকাশ্যে হাসানের সৎ ভাইয়ের স্ত্রী পারভীন বেগমের ভাই রিপন মিয়া, তার ভ্রাতুসপুত্র জয় মিয়া ও এলাকার নাঈম মিয়া মিলে হাসান মিয়া (২০) এর উপরে আক্রমণ করে বল প্রয়োগের মাধ্যমে ঘাসের ঔষধ খাইয়ে দেয়। ঘটনার ১৫ দিন পর ২৫ ফেব্রুয়ারি তারিখে সিলেটের ওসমানী মেডিকেল হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় হাসান মিয়ার মৃত্যু হয়। এই ঘটনার ১৫/২০ দিনে আগে রিপন মিয়া,তার ভাই রিংকু মিয়া ও তাদের সহযোগীরা রাতের আধাঁরে হাসান মিয়াকে হত্যার উদ্দেশ্যে দা,বটি দেখিয়ে দৌঁড়ে তুলে। ওইদিন হাসান দৌঁড়ে পালিয়ে প্রাণ রক্ষা পায় হাসান।

জাফর মিয়া অভিযোগ করেন,পারিবারিক কলহের জের ধরে পারভীন বেগম তার ভাইদের মাধ্যমে নিহত হাসানের বাড়িতে অগ্নিসংযোগ চালায় এবং বিভিন্ন সময়ে তাদেরকে মামলা,হামলাসহ প্রাণনাশের হুমকি দেখিয়ে আসছে বলে অভিযোগ তুলেন।

এ ব্যাপারে নিহত হাসানের উপরে নির্মম অত্যাচারের বর্ণনা দিয়ে গত ১৭ ফেব্রুয়ারি তারিখে শ্রীমঙ্গল থানায় ফৌজদারী বিধান অনুযায়ী ১৫৪ ধারার অপরাধ সংক্রান্তে স্বারক নং- ৯০১(৩)/১, তাং-১৮/০২/২০১৯ অনুসারে মামলা নং-১৭/৩৯ দায়ের করা হয়েছে। ইতোমধ্যে শ্রীমঙ্গল থানার এসআই দেলোয়ার হোসেন মামলাটি তদন্তের স্বার্থে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করলেও এখনও পর্যন্ত তিনি এ মামলার কোন আসামী গ্রেফতার করতে পারেনি। উল্টো আসামীরা আমাকে নানাভাবে হুমকি প্রদান করে আসছে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শ্রীমঙ্গল থানার অফিসার ইনচার্জ কে এম নজরুল বলেন, নিহত হাসানের লাশ ময়না তদন্তের কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তবে মেডিক্যাল রিপোর্ট এখনও আসেনি। ময়না তদন্তের রিপোর্টে যদি বলপ্রয়োগের মাধ্যমে হত্যার আলামত আসে তাহলে মামলাটি হত্যামামলায় টার্ন নিবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”