শ্রীমঙ্গলে বিজিবি-পরিবহন শ্রমিকদের সংঘর্ষের ঘটনায় বৃহস্পতিবার সাক্ষ্য গ্রহণ

জানুয়ারী ১১, ২০১৭, ৯:০৬ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৪ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার॥ মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গলে বিজিবি ও পরিবহণ শ্রমিকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত কমিটি উভয় পক্ষের সাক্ষ্য গ্রহণ করবে। বিজিবি ও পরিবহণ শ্রীমকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ ফারুক আহমদকে আহ্বায়ক করে ৪ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি ঘটন করা হয়।
তদন্ত কমিটি অধিনায়ক ৪৬/৫৫ বিজিবি শ্রীমঙ্গল ও সভাপতি/সম্পাদক পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়ন, শ্রীমঙ্গল উপস্থিত থাকার জন্য নোটিশ করা হয়েছে। কমিটির সদস্যরা ৮ জানুয়ারি থেকে তদন্ত কাজ শুরূ করে। শ্রীমঙ্গল রেলওয়ে মাঠে সরেজমিনে ক্ষতিগ্রস্থ গাড়ী ও পরিবহণ শ্রমিক/মালিকের নিকট তথ্য সংগ্রহ করেন। ক্ষতিগ্রস্থ দোকান/ব্যবসা প্রতিষ্ঠান থেকে ক্ষতির বিবরণী সংগ্রহ, বিভিন্ন ভাবে আহত ও প্রতক্ষদর্শীর বক্তব্য সংগ্রহ, সর্বসাধারনের কাছ থেকে স্থির ও ভিডিও চিত্র সংগ্রহ করাহয়।
বৃহস্পতিবার ১২ জানুয়ারি শ্রীমঙ্গল উপজেলা মিলনায়তনে সকাল ১০টা থেকে ৫টা পর্যন্ত উভয় পক্ষের পৃথক সাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে। প্রথম পর্যায়ে ঘটনার সাথে সংশ্লিষ্ট বিজিবি সদস্য এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে পরিবহন শ্রমিকদের সাক্ষ্য গ্রহণ করা হবে।
উল্লেখ্য, ৫ জানুয়ারী সন্ধ্যার দিকে শ্রীমঙ্গল শহরের ভানুগাছ রোডে পানসী রেষ্টুরেন্টের সামনে গাড়ি পার্কিংকে কেন্দ্র করে বিজিবি গাড়ী চালক ও স্থানীয় মাইক্রোবাস/পিকআপ এর কতিপয় ড্রাইভারদের মধ্যে বাক বিতন্ডা হয়। এ সময় স্থানীয় এক পরিবহন শ্রমিক ওই বিজিবি সদস্যকে লাঞ্চিত করেন। এ খবর বিজিবি সদর দপ্তরে পৌছালে বিজিবি সদস্যরা ঘটনাস্থলে এসে স্থানীয় ব্যবসায়ী, পরিবহন শ্রমিক ও সাধারণ মানুষদের মারধর করেন। পরে পরিবহন শ্রমিক ও ব্যবসায়ীরা বিজিবি সদস্যদের পাল্টা হামলা করলে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। শেষে বিজিবি সদর দপ্তর থেকে বের হয়ে আসা বিজিবি সদস্যরা বেশ কয়েক রাউন্ড গুলি ছুড়ে ও ব্যাপক ভাংচুর করে। এ ঘটনায় ৮ জন গুরুত্বর সহ ৫০ জন আহত হন। ঘটনার প্রতিবাদে ওই দিন রাতে ব্যবসায়ীরা শ্রীমঙ্গল চৌমুহনা চত্তরে অবস্থান নিয়ে প্রতিবাদ জানায় এবং পরের দিন শুক্রবার শ্রীমঙ্গল শহরে অর্ধঘট ও শনিবারেও সারা জেলায় অবরোধের ডাক দেয়।
পরে শনিবার ৭ জানুয়ারি সন্ধ্যায় জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে শ্রীমঙ্গলের বিটিআরআই রেষ্ট হাউসে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে ধর্মঘট প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়। মৌলভীবাজার জেলা প্রশাসক তোফায়েল ইসলাম এর সভাপতিত্বে বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, বিজিবি সরাইল রিজিওন এর রিজিয়নাল কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার আবুল হাসনাত, বিজিবি ৪১ সিলেটের অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল শাহ আলম চৌধুরী, ৫৫ বিজিবি শ্রীমঙ্গলের সিও লেঃ কর্ণেল সাজ্জাদ, পুলিশ সুপার মোঃ শাহজালাল, মৌলভীবাজার জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আজিজুর রহমান, মৌলভীবাজার পৌর মেয়র ফজলুল রহমান, সিলেট বিভাগীয় পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সেলিম আহমদ ফলিক, জেলা পরিবহন শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি সঞ্জিত দেব, উপজেলা সভাপতি ময়না মিয়াসহ, শ্রমিক নেতা, প্রশাসন ও বিজিবির উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন