স্থায়ী ঠিকানা গোপন রেখে প্রাইমারিতে চাকুরি

আগস্ট ৮, ২০১৮, ১০:২৭ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৯,৭৭৩ বার পঠিত

হোসাইন আহমদ॥ প্রাইমারিতে শিক্ষক পদে চাকুরির ক্ষেত্রে নিজ উপজেলার স্থায়ী নাগরিক হওয়ার সরকারি বিধান রয়েছে। অথচ কতিপয় শিক্ষক সরকারের ওই নীতিমালাকে বৃদ্ধাঙ্গুল দেখিয়ে মৌলভীবাজারে ভূয়া স্থায়ী ঠিকানা প্রদর্শন করে প্রাইমারিতে চাকুরি করার অভিযোগ উঠেছে। জেলার প্রায় অর্ধশতাতিক প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকদের বিরুদ্ধে স্থানীয় শিক্ষিত বেকাররা এ অভিযোগ তুলেছেন। এ নিয়ে তারা গত এক মাস ধরে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।

অনুসন্ধানে জানা যায়, সদর উপজেলায় প্রধান শিক্ষক পদে বাসতলা সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পিযুষ কান্তি দাসের স্থায়ী ঠিকানা শ্রীমঙ্গল উপজেলায়, জুমাপুর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রণদির দাশসের স্থায়ী ঠিকানা হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলায়, কেশবচর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ফজলুল কাদেরের স্থায়ী ঠিকানা নেত্রকোণা জেলায়, বিরামপুর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রুমা পন্ডিতের স্থায়ী ঠিকানা বরিশাল জেলায়, নালিউরি সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাজহারুল ইসলাম ও রাজনগর উপজেলার আদর্শ খাস প্রেমনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শাখাওয়াত হোসেনের স্থায়ী ঠিকানা মৌলভীবাজার নয়।

এদিকে সহাকারী শিক্ষক পদে দুর্লভপুর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আব্দুল মোতালিবের স্থায়ী ঠিকানা হবিগঞ্জ জেলার বাহুবল উপজেলায়, শাহবন্দর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নিলুপা ইয়াসমিনের স্থায়ী ঠিকানা কুমিল্লা জেলায়, বিনশনা সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শাহানারা আক্তার মজুমদারের স্থায়ী ঠিকানা কুমিল্লা জেলায়, আটগাঁও সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিপ্লব দাসের স্থায়ী ঠিকানা রাজনগর উপজেলার অন্তহরি গ্রামে, গয়ঘড় সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাইদা আক্তারের স্থায়ী ঠিকানা ব্রাক্ষণবাড়িয়া জেলায়, রাখা সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের আমিনুল ইসলামের স্থায়ী ঠিকানা মানিকগঞ্জ জেলায়, বাজার মডেল সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের তাহমিদা ইসলামের স্থায়ী ঠিকানা হবিগঞ্জ জেলায়, বিরামপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রুমা পন্ডিতের স্থায়ী ঠিকানা বরিশাল জেলায়, রাজনগর উপজেলার সিরাজ মিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে হযরত আলী’র বাড়ি রংপুর জেলা, বড়কাপন (একাটুনা) সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সারওয়ার ইসলাম, নিত্বেশর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মনিরা বেগম, পদিনাপুর সরককারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সাইফুল ইসলামমের স্থায়ী ঠিকানা মৌলভীবাজার নয়। এছাড়াও জেলার রাজনগর, কুলাউড়া, জুড়ী, বড়লেখা, শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ উপজেলায় অনেক প্রধান শিক্ষক ও সহকারী শিক্ষকের স্থায়ী ঠিকানা মৌলভীবাজার নয়।

মৌলভীবাজার থেকে বাহিরাগতদের প্রতিহত করতে ইতি মধ্যে “সহকারী শিক্ষক নিয়োগে বহিরাগত প্রতিহত পরিষদ” নামে একটি সংগঠন করা হয়েছে। সংগঠনের নেতাকর্মীরা ইতি মধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি নেছার আহমদ, পৌর মেয়র ফজলুর রহমান ও জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ বায়জিদ খানসহ একাধিক ব্যক্তির সাথে বিষয়টি নিয়ে মতবিনিময় সভা করেছেন এবং তাদের আন্দোলন অব্যাহত থাকার কথা বলেন।

এ বিষয়ে সহকারী শিক্ষক নিয়োগে বহিরাগত প্রতিহত পরিষদের মোঃ মুজাহিদ উদ্দিন বলেন, আইন লঙ্গন করে যারা মৌলভীবাজারে সরকারি চাকুরি নিয়েছে আমরা তাদের প্রতিহত করতে চাই এবং তাদের সর্বোচ্চ শাস্তি চাই। অন্যতায় দূর্বার আন্দোলনে নামবে এজেলার শিক্ষিত বেকাররা।

জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ বায়েজিদ খান বলেন, এধরনের কোনো অভিযোগ এখনও কেউ দেয়নি। অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেব।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”