১ কেজি চায়ের দাম ১১ হাজার ২ শত টাকা

মে ১৪, ২০১৮, ৭:৪৭ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৮০১ বার পঠিত

আশরাফ আলী॥ প্রথম নিলামের দিনেই ভাল দাম। তাই নানা কৌতুহল ওই চা বাগান, ব্রোকার হাউজ ও বায়ারকে নিয়ে। নিলামের পর পরই এই খবর লোক মুখে ছড়ায়। তাই সকলেরই কৌতুহল আর প্রশ্ন জাগে ওই চা পাতাকে ঘিরে। ওই চা দেখতে কেমন, চায়ের রং কেমন, ঘ্রাণ কেমন,স্বাদবাই কেমন হবে। ইত্যাদি নানা প্রশ্ন।
সোমবার ১৪ এপ্রিল দীর্ঘ প্রতিক্ষার অবসান শেষে চায়ের রাজধানী খ্যাত মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে নিলাম ডাকের মধ্যদিয়ে আনুষ্ঠানিক ভাবে চায়ের দ্বিতীয় আন্তর্জাতিক নিলাম কেন্দ্রে যাত্রা শুরু হয়। সকাল সাড়ে ৮টায় নিলাম ডাকের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। নিলামে ৭টি ব্রোকার্স হাউস অংশ গ্রহণ করে। দিনটি স্মরণীয় রাখতে কেএস ব্রোকার হাউজের ৫৫০ কেজির একটি লট (জিভিওপি) প্রতিকেজি চাপাতা বিক্রি হয় ১১ হাজার ২শ টাকা। নিলামে ইস্পাহানী কোম্পানী ৫৫০ কেজি চা পাতা ক্রয় করে যা প্রতিকেজির দর ১১ হাজার ২শত টাকা। এইদর বাংলাদেশের চা নিলামে ইতিহাস সৃষ্টি করেছে। এর আগে প্রতিকেজি চা পাতা এরকম দামে বিক্রি হয়নি বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।
আগামী ২৬ জুন ও ১৭ জুলাই চায়ের আরো দুটি আন্তর্জাতিক নিলাম শ্রীমঙ্গলে অনুষ্ঠিত হবে। চায়ের নিলাম আয়োজনের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান টি প্ল্যান্টার্স এন্ড ট্রেডার্স এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ এর সদস্য সচিব জহর তরফদার এই তথ্যটি নিশ্চিত করেছেন। রোববার বিকেল থেকেই বায়ার ও ব্রোকার্স হাউজের লোকজনের আনাগোনায় জমজমাট হয়ে উঠে শ্রীমঙ্গল। প্রথম নিলাম কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক যাত্রাকে ঘিরে দিনটিকে স্মরনীয় রাখতে নানা উদ্যোগ নেন শ্রীমঙ্গলের স্থানীয় ব্যবসায়ীরাও। নিলাম কেন্দ্রর আনুষ্ঠানিক যাত্রাকে স্বাগত জানিয়ে ওই দিন সন্ধ্যার পরপরই তারা আনন্দ র‌্যালী বের করেন।
জানা যায় সিলেটের মৌলভীবাজার জেলার শ্রীমঙ্গলে ২য় চা নিলাম কেন্দ্র স্থাপন করে সিলেটের চা সিলেটেই নিলাম করার দাবিতে ৭০ বছর ধরে আন্দোলন হচ্ছিল। এরই প্রেক্ষিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১২ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারী প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিভাগীয় কমিশনার ও জেলা প্রশাসকবৃন্দের সম্মেলনে সিলেট বিভাগের ৫টি এলাকায় সিলেটে ২য় চা নিলাম কেন্দ্র স্থাপনের ইচ্ছা ব্যক্ত করেন। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা অনুসারে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় ও চা বোর্ড উদ্যোগ গ্রহণ করে। ২০১২ সালের ১৪ এপ্রিল বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সচিব গোলাম হোসেনের সভাপতিত্বে সিলেট ও চট্টগ্রাম অঞ্চলের জনপ্রতিনিধি সহ চা সংশ্লিষ্ট নেতৃবৃন্দ উপস্থিত থেকে শ্রীমঙ্গলে আরেকটি চা নিলাম কেন্দ্র স্থাপনের সিদ্ধান্ত গৃহিত হয়।
২০১৩ সালের ২২ ও ২৩ মে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী কমিটির গঠিত সাব-কমিটির সদস্য ও তৎকালীন সংসদ সদস্য তহুরা আলীর নেতৃত্বে ২জন সংসদ সদস্য রুমানা মাহমুদ ও টিপু মুন্সী এবং চা বোর্ডের তৎকালীন চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল আব্দুস সালাম শ্রীমঙ্গলে চা নিলাম কেন্দ্র স্থাপনের সুযোগ সুবিধা রয়েছে বলে সুস্পষ্ট মত দেন। এর প্রেক্ষিতে নানা আনুষ্ঠানিকতা শেষে প্রধান মন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের মধ্য দিয়ে সিলেট বিভাগের দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত দাবি পূরণ হল।
সবুজ টি লিঃ এর চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী জানান, স্থানীয় চা বাগান মালিকরা জানান, শ্রীমঙ্গলে চা নিলাম কেন্দ্র চালু হওয়ায় এই এলাকার ব্যবসায়ীদের অর্থনৈতিক সা¯্রয়ী হবে। নামমাত্র পরিবহন খরছে তাদের উৎপাদিত চা শ্রীমঙ্গলস্থ ওয়ারহাউসে পাঠাতে পারবেন। চায়ের গুনগতমানও ভাল থাকবে। উৎকৃষ্ট মানের চা অর্থাৎ বাগানের উৎপাদিত তাজা চা ১৫-২০ দিনের মধ্যে এবার টেবিলে চলে যাবে। শ্রীমঙ্গলে চা নিলাম কেন্দ্র চালু হওয়ায় এখন থেকে আর একাধিক পরিবহন খরচ লাগবেনা। দ্রুত চায়ের নিলাম কাজ সম্পন্ন হবে এবং খুচরা বাজারে কম সময়ে চা পৌছে যাবে।
আজ ৫৫০ কেজির চা পাতার লটটি প্রতি কেজি ১১ হাজার ২শ টাকা বিক্রি হওয়ায় দিনটি সংশ্লিষ্টদের জন্য স্মরণীয় হয়ে থাকল। সুন্দর ও সুষ্ঠভাবে প্রথম নিলাম সম্পন্ন হওয়া সবাই আনন্দিত।
ইউনিট ব্রোকার্স এর ম্যানেজিং ডাইরেক্টর সৈয়দ সাজ্জাত হায়াত জানান, ১৯৪৯ সাল থেকে চট্রগামে চায়ের নিলাম হয়ে আসছে। ওই সময়ে উৎপাদিত চা বেশীর ভাগ বিদেশে রপ্তানী হতো। সমুদ্র বন্দর চট্রগ্রাম হওয়াতে ওই সময়ে চায়ের নিলাম কেন্দ্র গড়েউঠে চটগ্রামে। শ্রীমঙ্গলে এই প্রথম চায়ের নিলাম পরীক্ষামূলক শুরু হয়েছে, সফলতা আসলে এই নিলাম কেন্দ্রটি স্থায়ী নিলাম কেন্দ্র হিসেবে পরিচিতি পাবে।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”