শ্রীমঙ্গলে আবার শ্রমিকের দখলিয় জমিতে ম্যানেজমেন্টের হস্তক্ষেপ ॥ প্রতিবাদে মানববন্ধন

জুলাই ৩১, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৪ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল ফিনলে টির লাখাইছড়া চা বাগানে চা শ্রমিকের ভোগদখলীয় জমির গাছ-গাছড়া উপড়ে ফেলে সে জমি বাগান কর্তৃপক্ষ নিয়ে যাওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বাগানের সাধারন শ্রমিকরা। ৩১ জুলাই বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় দখলিয় জমির পাশে শ্রীমঙ্গল কালীঘাট সড়কে এর প্রতিবাদে মানববন্ধন করে শ্রমিকরা। শ্রমিকরা জানায়, বাগান কর্তৃপক্ষ তাদের না জানিয়ে হঠাৎ করে এক্সেভেটর দিয়ে জমিতে রোপিত গাছ গাছালী উপরে ফেলতে থাকে। এ ঘটনায় শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এ সময় মানবন্ধন স্থলে উপস্থিত থেকে এর পতিবাদ জানান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রানেশ গোয়ালা, ইউপি সদস্য নন্দ লাল মৃধা। দীর্ঘ দিন ধরে জমির দখলে থাকা বাগানের শ্রমিক সন মৃধা ও কাজলী রাণী মৃধা এ প্রতিবেদককে জানান, তাদের বাড়ির পাশের এই জমিটি দীর্ঘ দিন ধরে তারা ভোগ করে আসছেন। জমিতে তারা সুপারী, সেগুন, গামাইসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগিয়েছেন। এবং এর মধ্যে প্রতিবছর চাষ করে আসছেন বিভিন্ন প্রজাতির সবজী। সন মৃধা আরো জানান, বাগানের বাবু তাদের জানিয়েছে তাদের জমির এক কোণায় মাটি সমান করে তাদের থাকার ঘর করে দিবে। কিন্তু পরে দেখা যায় প্রায় এক বিঘার পুরো জমিতে রোপিত সকল ফসল ও গাছ-গাছরা উপরে ফেলে এক্সেভেটর দিয়ে সব সমান করা হচ্ছে। দীর্ঘ দিন ধরে তাদের ভোগদখলী এই জমিটি হাত ছাড়া হয়ে যাওয়ায় তারা অনেকটা মানষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন। এ ব্যাপারে ফিনলে টি এর চিফ ওপারেটিং অফিসার এস এম তাহেরের সাথে যোগাযোগ করলে সাংবাদিকদের জানান, তিনি ঢাকায় অবস্থান করেছেন, এর সঠিক কারণ তার জানানেই, তবে বাগানের প্রয়োজনেই কাজ করা হবে এটি তাদের নিতান্তই অভ্যান্তরিন বিষয় যা সাংবাদিকদের বলা যাবেনা। তবে অপর একটি সুত্রে জানাযায়, বাগানের আবাসন নির্মানের জন্য সেখানে কাজ করা হচ্ছে। উল্লেখ্য বাগানের প্রয়োজনে শ্রমিকদের ভোগদখলী বিভিন্ন জমি ম্যানেজমেন্ট নিতে পারে। ইতি পূর্বে বিভিন্ন বাগানেই এমন ঘটনা ঘটেছে। তবে সাংবাদিকদের কাছে এ বিষয়টি লোকানোর ঘটনা অনেকে রহস্যজনক বলে মনে করেন।
মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল ফিনলে টির লাখাইছড়া চা বাগানে চা শ্রমিকের ভোগদখলীয় জমির গাছ-গাছড়া উপড়ে ফেলে সে জমি বাগান কর্তৃপক্ষ নিয়ে যাওয়ার প্রতিবাদে মানববন্ধন করেছে বাগানের সাধারন শ্রমিকরা। ৩১ জুলাই বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায় দখলিয় জমির পাশে শ্রীমঙ্গল কালীঘাট সড়কে এর প্রতিবাদে মানববন্ধন করে শ্রমিকরা। শ্রমিকরা জানায়, বাগান কর্তৃপক্ষ তাদের না জানিয়ে হঠাৎ করে এক্সেভেটর দিয়ে জমিতে রোপিত গাছ গাছালী উপরে ফেলতে থাকে। এ ঘটনায় শ্রমিকদের মধ্যে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। এ সময় মানবন্ধন স্থলে উপস্থিত থেকে এর পতিবাদ জানান স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান প্রানেশ গোয়ালা, ইউপি সদস্য নন্দ লাল মৃধা। দীর্ঘ দিন ধরে জমির দখলে থাকা বাগানের শ্রমিক সন মৃধা ও কাজলী রাণী মৃধা এ প্রতিবেদককে জানান, তাদের বাড়ির পাশের এই জমিটি দীর্ঘ দিন ধরে তারা ভোগ করে আসছেন। জমিতে তারা সুপারী, সেগুন, গামাইসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ লাগিয়েছেন। এবং এর মধ্যে প্রতিবছর চাষ করে আসছেন বিভিন্ন প্রজাতির সবজী। সন মৃধা আরো জানান, বাগানের বাবু তাদের জানিয়েছে তাদের জমির এক কোণায় মাটি সমান করে তাদের থাকার ঘর করে দিবে। কিন্তু পরে দেখা যায় প্রায় এক বিঘার পুরো জমিতে রোপিত সকল ফসল ও গাছ-গাছরা উপরে ফেলে এক্সেভেটর দিয়ে সব সমান করা হচ্ছে। দীর্ঘ দিন ধরে তাদের ভোগদখলী এই জমিটি হাত ছাড়া হয়ে যাওয়ায় তারা অনেকটা মানষিক ভাবে ভেঙ্গে পড়েছেন। এ ব্যাপারে ফিনলে টি এর চিফ ওপারেটিং অফিসার এস এম তাহেরের সাথে যোগাযোগ করলে সাংবাদিকদের জানান, তিনি ঢাকায় অবস্থান করেছেন, এর সঠিক কারণ তার জানানেই, তবে বাগানের প্রয়োজনেই কাজ করা হবে এটি তাদের নিতান্তই অভ্যান্তরিন বিষয় যা সাংবাদিকদের বলা যাবেনা। তবে অপর একটি সুত্রে জানাযায়, বাগানের আবাসন নির্মানের জন্য সেখানে কাজ করা হচ্ছে। উল্লেখ্য বাগানের প্রয়োজনে শ্রমিকদের ভোগদখলী বিভিন্ন জমি ম্যানেজমেন্ট নিতে পারে। ইতি পূর্বে বিভিন্ন বাগানেই এমন ঘটনা ঘটেছে। তবে সাংবাদিকদের কাছে এ বিষয়টি লোকানোর ঘটনা অনেকে রহস্যজনক বলে মনে করেন। শ্রীমঙ্গল প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন