মৌলভীবাজার শহরের পশ্চিবাজহারস্থ একটি হোটেলে পুরুষাঙ্গ কর্তন

আগস্ট ১, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৫ বার পঠিত

মৌলভীবাজার শহরের পশ্চিবাজহারস্থ হোটেল সাফিতে কদর মিয়া (৫০)নামের এক বর্ডারের পুরুষাঙ্গ কর্তন করেছে তারই বন্ধু আজাদ মিয়া (২৫)। ১ আগষ্ট বৃহষ্পতিবার রাত পৌনে ১২টায় এ ঘটনা ঘটে। তাকে দ্রুত মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। আহত কদর মিয়া জানান, বয়সে তার অনেক ছোট হলেও কমলগঞ্জ উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মৃত নিয়ামত উল্ল্যার ছেলে আজাদ মিয়ার সাথে দীর্ঘ ১০/১২ বছর থেকে বন্ধুন্তের সর্ম্পক। সে সর্ম্পকের জের ধরে বৃহষ্পতিবার সন্ধায় তার বাড়ি থেকে নিয়ে আসে মৌলভীবাজার শহরে। তারা উভয়ই শহরের পশ্চিমবাজারস্থ হোটেল সাফি’র একটি কক্ষে উঠেন। সেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে পড়লে কদর মিয়ার পুরুষাঙ্গ কর্তন করে আজাদ মিয়া পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন। তিনি আরোও জানিয়েছেন, আজাদের কাছে প্রায় এক লাখ টাকা পাবেন। সেই টাকার জন্যও তিনি আজাদকে চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন। মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আদপাশা গ্রামের মৃত রশিদ মিয়ার ছেলে কদর মিয়া। পুলিশ ধারনা করছে আজাদের স্ত্রীর সাথে কদর মিয়ার অসামাজিক কার্যকলাপের জের ধরেই এ ঘটনা ঘটতে পারে। মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমান বলেন, ঘটনাকারীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।
মৌলভীবাজার শহরের পশ্চিবাজহারস্থ হোটেল সাফিতে কদর মিয়া (৫০)নামের এক বর্ডারের পুরুষাঙ্গ কর্তন করেছে তারই বন্ধু আজাদ মিয়া (২৫)। ১ আগষ্ট বৃহষ্পতিবার রাত পৌনে ১২টায় এ ঘটনা ঘটে। তাকে দ্রুত মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে নিয়ে আসা হয়। তার অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় তাকে সিলেট মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। আহত কদর মিয়া জানান, বয়সে তার অনেক ছোট হলেও কমলগঞ্জ উপজেলার রসুলপুর গ্রামের মৃত নিয়ামত উল্ল্যার ছেলে আজাদ মিয়ার সাথে দীর্ঘ ১০/১২ বছর থেকে বন্ধুন্তের সর্ম্পক। সে সর্ম্পকের জের ধরে বৃহষ্পতিবার সন্ধায় তার বাড়ি থেকে নিয়ে আসে মৌলভীবাজার শহরে। তারা উভয়ই শহরের পশ্চিমবাজারস্থ হোটেল সাফি’র একটি কক্ষে উঠেন। সেখানে খাওয়া-দাওয়া শেষে ঘুমিয়ে পড়লে কদর মিয়ার পুরুষাঙ্গ কর্তন করে আজাদ মিয়া পালিয়ে যায় বলে অভিযোগ করেন। তিনি আরোও জানিয়েছেন, আজাদের কাছে প্রায় এক লাখ টাকা পাবেন। সেই টাকার জন্যও তিনি আজাদকে চাপ প্রয়োগ করে আসছিলেন। মৌলভীবাজার সদর উপজেলার আদপাশা গ্রামের মৃত রশিদ মিয়ার ছেলে কদর মিয়া। পুলিশ ধারনা করছে আজাদের স্ত্রীর সাথে কদর মিয়ার অসামাজিক কার্যকলাপের জের ধরেই এ ঘটনা ঘটতে পারে। মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আজিজুর রহমান বলেন, ঘটনাকারীকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। স্টাফ রিপোর্টার॥

মন্তব্য করুন