পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ফেন্সিডিলবাহী কারের ধাক্কায় এক মহিলা নিহত ॥ মহিলা ও শিশুসহ আহত-৪ ॥ গ্রেফতার-১

আগস্ট ৩, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ২ বার পঠিত

কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগরে ডিবি পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ফিন্সিডিলবাহী কারের ধাক্কায় এক মহিলা নিহত হয়েছেন। মহিলা ও শিশুসহ চারজন আহত হয়েছেন। ৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ কার জব্দ করেছে পুলিশ। এক ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী আটক। গত ১ আগষ্ট বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় শমশেরনগর-মৌলভীবাজার সড়কের ভাদাইর দেউল গ্রাম এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা যায়, চাতলাপুর চা বাগান এলাকা থেকে মাদক ফেন্সিডিল নিয়ে কুমিল্লা-খ-০৫-০০১২ নম্বরের সাদা রং-এর একটি প্রাইভেট কারকে মৌলভীবাজারের ডিবি পুলিশের এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ধাওয়া করছিল। ডিবি পুলিশের ধাওয়া খেয়ে শমশেরনগর সরকারী ডাকবাংলোর অদূরে ভাদাইর দেউল এলাকায় ফিন্সিডিলবাহী কারটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফারুক আহমদ নামের এক ব্যক্তির বাসায় প্রবেশ করে। ফলে ফারুক আহমদের শিশু সন্তান শিপু (১২), তপু (৮), স্ত্রী পারভীন বেগম (৩৫) ও কাজের মেয়ে মিলাতুন বেগম (১৮) ও ডেকোরেটার্স কর্মী আলেয়া বেগম (৩৫) গুরুতরভাবে আহত হন। এর মাঝে আলেয়া বেগমকে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টায় সে মৃত্যূবরণ করে। দুই শিশু সন্তান ও কাজের মেয়েসহ পারভীন আক্তারকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মাঝে দুই শিশু সন্তানের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যায়। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ মাদকবাহী প্রাইভেট কারটিকে ধাওয়া করছিল। ধাওয়া খেয়ে কারটি দূর্ঘটনায় পতিত হলে এলাকাবাসীর সহায়তায় ডিবি পুলিশ ও স্থানীয় ফাঁড়ির পুলিশ মাদক ব্যবসায়ী মনসুর আহমদ (২৮)কে আটক করতে সক্ষম হয়েছে। অপর এক ব্যক্তি কার থেকে নেমে পালিয়ে যায়। প্রাইভেট কার তল্লাশি করে ৭ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। পুলিশ ফেন্সিডিলের সাতে প্রাইভেট কারটিও জব্দ করেছে।
কমলগঞ্জ উপজেলার শমশেরনগরে ডিবি পুলিশের ধাওয়া খেয়ে ফিন্সিডিলবাহী কারের ধাক্কায় এক মহিলা নিহত হয়েছেন। মহিলা ও শিশুসহ চারজন আহত হয়েছেন। ৭ বোতল ফেন্সিডিলসহ কার জব্দ করেছে পুলিশ। এক ফেন্সিডিল ব্যবসায়ী আটক। গত ১ আগষ্ট বৃহষ্পতিবার সন্ধ্যায় শমশেরনগর-মৌলভীবাজার সড়কের ভাদাইর দেউল গ্রাম এলাকায় এ ঘটনাটি ঘটে। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ি সূত্রে জানা যায়, চাতলাপুর চা বাগান এলাকা থেকে মাদক ফেন্সিডিল নিয়ে কুমিল্লা-খ-০৫-০০১২ নম্বরের সাদা রং-এর একটি প্রাইভেট কারকে মৌলভীবাজারের ডিবি পুলিশের এসআই নজরুল ইসলামের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল ধাওয়া করছিল। ডিবি পুলিশের ধাওয়া খেয়ে শমশেরনগর সরকারী ডাকবাংলোর অদূরে ভাদাইর দেউল এলাকায় ফিন্সিডিলবাহী কারটি নিয়ন্ত্রণ হারিয়ে ফারুক আহমদ নামের এক ব্যক্তির বাসায় প্রবেশ করে। ফলে ফারুক আহমদের শিশু সন্তান শিপু (১২), তপু (৮), স্ত্রী পারভীন বেগম (৩৫) ও কাজের মেয়ে মিলাতুন বেগম (১৮) ও ডেকোরেটার্স কর্মী আলেয়া বেগম (৩৫) গুরুতরভাবে আহত হন। এর মাঝে আলেয়া বেগমকে কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হলে বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে ৯ টায় সে মৃত্যূবরণ করে। দুই শিশু সন্তান ও কাজের মেয়েসহ পারভীন আক্তারকে মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এদের মাঝে দুই শিশু সন্তানের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে জানা যায়। শমশেরনগর পুলিশ ফাঁড়ির দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা এসআই রফিকুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে ডিবি পুলিশ মাদকবাহী প্রাইভেট কারটিকে ধাওয়া করছিল। ধাওয়া খেয়ে কারটি দূর্ঘটনায় পতিত হলে এলাকাবাসীর সহায়তায় ডিবি পুলিশ ও স্থানীয় ফাঁড়ির পুলিশ মাদক ব্যবসায়ী মনসুর আহমদ (২৮)কে আটক করতে সক্ষম হয়েছে। অপর এক ব্যক্তি কার থেকে নেমে পালিয়ে যায়। প্রাইভেট কার তল্লাশি করে ৭ বোতল ভারতীয় ফেন্সিডিল উদ্ধার করা হয়। পুলিশ ফেন্সিডিলের সাতে প্রাইভেট কারটিও জব্দ করেছে। কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন