কমলগঞ্জে খুরের আঘাতে এক তালামীয সদস্য আহত ॥ এক ছাত্রশিবির কর্মী গ্রেফতার

জুলাই ৮, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৩ বার পঠিত

মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে চলন্ত বাসের মাঝে ইসলামী ছাত্র শিবির সদস্যদের খুরের আঘাতে সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসার তালামীয সদস্য নবম শ্রেণীর (দাখিল) এক ছাত্র আহত হওয়ার ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় ৬ ছাত্রশিবির কর্মীকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ পান্না তালুকদার নামে এক শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করে। আহত শিক্ষার্থী আব্দুর রহমান (২৩) অভিযোগ করে বলেন, সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার পথে শিবির সদস্যরা তাদেরকে নানাভাবে উত্যক্ত করত। ছাত্র শিবির করতে হবে বলে তারা হুমকি দিত। এ ঘটনায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে বিচার প্রার্থনা করলে রোববার মাদ্রাসা থেকে বেরিয়ে কমলগঞ্জ থেকে বাস যোগে শমশেরনগর ফেরার পথে চলন্ত বাসে উঠে আলিম প্রথম বর্ষের ছাত্র সালেহ আহমদসহ ৭/৮ জন শিবির সদস্য অতর্কিতভাবে খুর দিয়ে আঘাত করে আহত করে বাস থেকে নেমে যায়। আহত মাদ্রাসা ছাত্রকে চিকিৎসার জন্য কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় আব্দুর রহমান বাদী হয়ে রোববার রাতেই কমলগঞ্জ থানায় ৬ ছাত্রশিবির কর্মীকে আসামী করে একটি মামলা করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ রোববার রাতেই মামলার এজাহারভূক্ত আসামী পান্না তালুকদার (২৮) নামে এক শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করে। সে কমলগঞ্জ উপজেলার রামপাশা গ্রামের মৃত মাহমুদ আলীর ছেলে। সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত ছাত্রশিবির কর্মী পান্না তালুকদারকে আদালতের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয় বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোশাররফ হোসেন জানান। ঘটনা সম্পর্কে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ বলেন, রোববার বিকেলে কমলগঞ্জ উপজেলার সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্র আব্দুর রহমানকে ছুরিকাঘাতে আহত করার মামলায় এক ছাত্রশিবির কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে।
মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে চলন্ত বাসের মাঝে ইসলামী ছাত্র শিবির সদস্যদের খুরের আঘাতে সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসার তালামীয সদস্য নবম শ্রেণীর (দাখিল) এক ছাত্র আহত হওয়ার ঘটনায় কমলগঞ্জ থানায় ৬ ছাত্রশিবির কর্মীকে আসামী করে কমলগঞ্জ থানায় একটি মামলা হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ পান্না তালুকদার নামে এক শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করে। আহত শিক্ষার্থী আব্দুর রহমান (২৩) অভিযোগ করে বলেন, সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার পথে শিবির সদস্যরা তাদেরকে নানাভাবে উত্যক্ত করত। ছাত্র শিবির করতে হবে বলে তারা হুমকি দিত। এ ঘটনায় মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের কাছে বিচার প্রার্থনা করলে রোববার মাদ্রাসা থেকে বেরিয়ে কমলগঞ্জ থেকে বাস যোগে শমশেরনগর ফেরার পথে চলন্ত বাসে উঠে আলিম প্রথম বর্ষের ছাত্র সালেহ আহমদসহ ৭/৮ জন শিবির সদস্য অতর্কিতভাবে খুর দিয়ে আঘাত করে আহত করে বাস থেকে নেমে যায়। আহত মাদ্রাসা ছাত্রকে চিকিৎসার জন্য কমলগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় আব্দুর রহমান বাদী হয়ে রোববার রাতেই কমলগঞ্জ থানায় ৬ ছাত্রশিবির কর্মীকে আসামী করে একটি মামলা করেছে। এ ঘটনায় পুলিশ রোববার রাতেই মামলার এজাহারভূক্ত আসামী পান্না তালুকদার (২৮) নামে এক শিবির কর্মীকে গ্রেফতার করে। সে কমলগঞ্জ উপজেলার রামপাশা গ্রামের মৃত মাহমুদ আলীর ছেলে। সোমবার দুপুরে গ্রেফতারকৃত ছাত্রশিবির কর্মী পান্না তালুকদারকে আদালতের মাধ্যমে মৌলভীবাজার জেল হাজতে প্রেরণ করা হয় বলে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মোশাররফ হোসেন জানান। ঘটনা সম্পর্কে কমলগঞ্জ থানার ওসি নীহার রঞ্জন নাথ বলেন, রোববার বিকেলে কমলগঞ্জ উপজেলার সফাত আলী সিনিয়র মাদ্রাসার নবম শ্রেণীর ছাত্র আব্দুর রহমানকে ছুরিকাঘাতে আহত করার মামলায় এক ছাত্রশিবির কর্মীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন