আলিমে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত বড়লেখার মাছুমের উচ্চ শিক্ষা অর্জন নিয়ে সংশয়

আগস্ট ৭, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৩ বার পঠিত

বড়লেখা উপজেলার পাথারিয়া গাংকুল মনসুরিয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে এবারের আলিম পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুমের জন্য ভাল ফলাফল অর্জনই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। হত দরিদ্র পরিবারের তিন ভাইবোনের সবার বড় মাছুম। হাফিজি পড়ার সময় বাবা মুহিবুর রহমান মারা যান। ভাইবোনের পড়াশুনা ও মা রফিকুন নেছার ভরনপোষন চালাতে হাফিজি পড়া বন্ধ করে বাধ্য হয়ে চাকুরী নিতে হয় মসজিদের মোয়াজ্জেমের। দীর্ঘদিন পড়াশুনা বন্ধ থাকলেও প্রবল ইচ্ছাশক্তির কারনে ইমামতির পাশাপাশি কোরআনের হিফ্জ সম্পন্ন করেন। দাখিল পাশ করার স্বপ্ন নিয়ে ভর্তি হয় গাংকুল মাদ্রাসায়। পড়াশুনার খরচ চালাতে মসজিদের চাকুরীর বাহিরে কয়েকটি টিউশনি যোগাড় করে নেয়। কিন্তু দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তি পড়াশুনার ইতি টানতে দেয়নি। ভাইবোনের পড়াশুনার খরচ আর মায়ের ভরনপোষন চালানোর যোদ্ধে নিজের শিক্ষা অর্জনের নতুন যুদ্ধে সামিল হয় হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুম। আলিমে ভর্তি হয় একই মাদ্রাসায়। এ যুদ্ধেও বীরের সম্মান অর্জন করেছে সে। হয়ে উঠেছে এ মাদ্রাসার একমাত্র জিপিএ-৫ প্রাপ্ত মেধাবী ছাত্র। অভার আর নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও যে ভাল ফলাফল অর্জন করা যায় তার উৎকৃষ্ট উদাহরন হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুম। মাছুম জানায় ভেবেছিলাম কোনমতে আলিম পাশ করলেই হয়। কিন্তু এবারও জিপিএ-৫ প্রাপ্তির কারনে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের আকাঙ্খা জাগছে। কিন্তু এবার বোধহয় থামতেই হবে। যদিও আইন বিষয়ে পড়াশুনার ইচ্ছা রয়েছে।
বড়লেখা উপজেলার পাথারিয়া গাংকুল মনসুরিয়া ফাজিল মাদ্রাসা থেকে এবারের আলিম পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুমের জন্য ভাল ফলাফল অর্জনই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছে। হত দরিদ্র পরিবারের তিন ভাইবোনের সবার বড় মাছুম। হাফিজি পড়ার সময় বাবা মুহিবুর রহমান মারা যান। ভাইবোনের পড়াশুনা ও মা রফিকুন নেছার ভরনপোষন চালাতে হাফিজি পড়া বন্ধ করে বাধ্য হয়ে চাকুরী নিতে হয় মসজিদের মোয়াজ্জেমের। দীর্ঘদিন পড়াশুনা বন্ধ থাকলেও প্রবল ইচ্ছাশক্তির কারনে ইমামতির পাশাপাশি কোরআনের হিফ্জ সম্পন্ন করেন। দাখিল পাশ করার স্বপ্ন নিয়ে ভর্তি হয় গাংকুল মাদ্রাসায়। পড়াশুনার খরচ চালাতে মসজিদের চাকুরীর বাহিরে কয়েকটি টিউশনি যোগাড় করে নেয়। কিন্তু দাখিল পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্তি পড়াশুনার ইতি টানতে দেয়নি। ভাইবোনের পড়াশুনার খরচ আর মায়ের ভরনপোষন চালানোর যোদ্ধে নিজের শিক্ষা অর্জনের নতুন যুদ্ধে সামিল হয় হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুম। আলিমে ভর্তি হয় একই মাদ্রাসায়। এ যুদ্ধেও বীরের সম্মান অর্জন করেছে সে। হয়ে উঠেছে এ মাদ্রাসার একমাত্র জিপিএ-৫ প্রাপ্ত মেধাবী ছাত্র। অভার আর নানা প্রতিকুলতার মধ্যেও যে ভাল ফলাফল অর্জন করা যায় তার উৎকৃষ্ট উদাহরন হাফিজ আব্দুল্লাহ আল মাছুম। মাছুম জানায় ভেবেছিলাম কোনমতে আলিম পাশ করলেই হয়। কিন্তু এবারও জিপিএ-৫ প্রাপ্তির কারনে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের আকাঙ্খা জাগছে। কিন্তু এবার বোধহয় থামতেই হবে। যদিও আইন বিষয়ে পড়াশুনার ইচ্ছা রয়েছে। কুলাউড়া অফিস॥

মন্তব্য করুন