বেগম খালেদা জিয়ার ৬৯তম জন্ম দিনের আলোচনা সভায় —-এম নাসের রহমান॥ বেগম খালেদা জিয়া এ শতকের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় নেত্রী

আগস্ট ১৬, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৪ বার পঠিত

বিএনপি কেন্দ্রীয় জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমান বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া এ শতকের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় নেত্রী। দেশ ও জনগণের সঙ্কটাপন্ন মুহূর্তে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে তিনি জনগণের প্রিয়,দেশনেত্রী হয়েছেন। দেশের মানুষ আবারো জাতির চরম বিপদ মুহূর্তে বেগম জিয়ার দিক নির্দেশনার দিকেই তাকিয়ে আছে। নাসের রহমান উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আওয়ামী লীগ মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তারা গণতন্ত্র মানে না। ক্ষমতায় আসার পর তারা একেরপর এক গণতন্ত্রের প্রতিটি স্তম্ভ ধ্বংস করেছে। সংসদকে অকার্যকর করেছে। প্রশাসন ও বিচার বিভাগ দলীয় করণ করেছে। দুর্নীতি সর্বকালের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করেছে। ব্যাংকিং সেক্টরকে শেষ করে দিয়েছে। দুর্নীতির কারণে স্বপ্নের পদ্মা সেতু থেকে বিশ্বব্যাংক সরে গেছে। তিনি বলেন, সরকারের দুর্নীতি, দুঃশাসনের কারণে দেশবাসীর আস্থা হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তাই রাতের আঁধারে অন্যের বিলবোর্ড দখল করে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে। এসব করে জনগণের আস্থা অর্জন করা যাবে না। বিদেশ থেকে সেনাপতি আমদানি করেও পতন ঠেকানো যাবে না। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ৬৯তম জন্ম উৎসব উপলক্ষে ১৫ আগস্ট বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টারদিকে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের উদ্যোগে স্থানীয় রুমেল কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার হোসেন কামালের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহবায়ক আলী ছবদর খান বাবরের পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ছাত্র নেতা আব্দুল হাই পিপলু,যুবদল নেতা সালাম আহমেদ জিতু,বিএনপি নেতা আব্দুর রহিম রিপন,রানা খান শাহীন,ছাদিক আহমেদ,মনোয়ার হোসেন,ফরহাদ রশিদ,সুলেমান আহমেদ,এড মুজিবুর রহমান মুজিব, মো.ইউছুফ আলী,আব্দুল ওয়ালী সিদ্দীকি,জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এম এ মুকিত,এড মহিউদ্দিন মানিক,এড ফয়সাল আহমেদ,কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ –সাংগঠনিক সম্পাদক মতিন বক্স, এড.মামুনুর রশিদ,এড আনোয়ার আক্তার শিউলি,এড দেলোয়ার হোসেন,এড রনধীর ,এড শেকুল। তিনি আরো বলেন, ১৯৭৫ সালে মাত্র ১১ মিনিটে সংসদে সব রাজনৈতিক দল ও সংবাদপত্র নিষিদ্ধ করে আওয়ামী লীগ বাকশাল কায়েম করেছিল। পরবর্তীতে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান জাতিকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়ে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার পথ ধরে বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের জন্য আজীবন সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। নাসের বলেন, রাজনৈতিক দলের মধ্যে আস্থার অভাবের কারণে দেশের শতকরা ৯০ ভাগ মানুষ বিশ্বাস করে কোনো দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। তাই বিএনপিসহ ১৮ দল নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করছে। এক সময় আওয়ামী লীগ একই দাবিতে আন্দোলন করেছে। এই দাবিতে ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে।
বিএনপি কেন্দ্রীয় জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য ও মৌলভীবাজার জেলা বিএনপির সভাপতি এম নাসের রহমান বলেছেন, বেগম খালেদা জিয়া এ শতকের সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য ও জনপ্রিয় নেত্রী। দেশ ও জনগণের সঙ্কটাপন্ন মুহূর্তে ঘর থেকে বেরিয়ে এসে তিনি জনগণের প্রিয়,দেশনেত্রী হয়েছেন। দেশের মানুষ আবারো জাতির চরম বিপদ মুহূর্তে বেগম জিয়ার দিক নির্দেশনার দিকেই তাকিয়ে আছে। নাসের রহমান উপস্থিত নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে বলেন, আওয়ামী লীগ মুখে গণতন্ত্রের কথা বললেও তারা গণতন্ত্র মানে না। ক্ষমতায় আসার পর তারা একেরপর এক গণতন্ত্রের প্রতিটি স্তম্ভ ধ্বংস করেছে। সংসদকে অকার্যকর করেছে। প্রশাসন ও বিচার বিভাগ দলীয় করণ করেছে। দুর্নীতি সর্বকালের রেকর্ড ভঙ্গ করেছে। দেশের অর্থনীতিকে পঙ্গু করেছে। ব্যাংকিং সেক্টরকে শেষ করে দিয়েছে। দুর্নীতির কারণে স্বপ্নের পদ্মা সেতু থেকে বিশ্বব্যাংক সরে গেছে। তিনি বলেন, সরকারের দুর্নীতি, দুঃশাসনের কারণে দেশবাসীর আস্থা হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। তাই রাতের আঁধারে অন্যের বিলবোর্ড দখল করে মিথ্যা প্রচারণা চালাচ্ছে। এসব করে জনগণের আস্থা অর্জন করা যাবে না। বিদেশ থেকে সেনাপতি আমদানি করেও পতন ঠেকানো যাবে না। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার ৬৯তম জন্ম উৎসব উপলক্ষে ১৫ আগস্ট বৃহস্পতিবার রাত সাড়ে নয়টারদিকে মৌলভীবাজার জেলা ছাত্রদলের উদ্যোগে স্থানীয় রুমেল কমিউনিটি সেন্টারে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। জেলা ছাত্রদলের যুগ্ম আহবায়ক আনোয়ার হোসেন কামালের সভাপতিত্বে ও যুগ্ম আহবায়ক আলী ছবদর খান বাবরের পরিচালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- ছাত্র নেতা আব্দুল হাই পিপলু,যুবদল নেতা সালাম আহমেদ জিতু,বিএনপি নেতা আব্দুর রহিম রিপন,রানা খান শাহীন,ছাদিক আহমেদ,মনোয়ার হোসেন,ফরহাদ রশিদ,সুলেমান আহমেদ,এড মুজিবুর রহমান মুজিব, মো.ইউছুফ আলী,আব্দুল ওয়ালী সিদ্দীকি,জেলা বিএনপির যুগ্ম সম্পাদক এম এ মুকিত,এড মহিউদ্দিন মানিক,এড ফয়সাল আহমেদ,কেন্দ্রীয় যুবদলের সহ –সাংগঠনিক সম্পাদক মতিন বক্স, এড.মামুনুর রশিদ,এড আনোয়ার আক্তার শিউলি,এড দেলোয়ার হোসেন,এড রনধীর ,এড শেকুল। তিনি আরো বলেন, ১৯৭৫ সালে মাত্র ১১ মিনিটে সংসদে সব রাজনৈতিক দল ও সংবাদপত্র নিষিদ্ধ করে আওয়ামী লীগ বাকশাল কায়েম করেছিল। পরবর্তীতে শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান জাতিকে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দিয়ে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। তার পথ ধরে বেগম খালেদা জিয়া গণতন্ত্রের জন্য আজীবন সংগ্রাম করে যাচ্ছেন। নাসের বলেন, রাজনৈতিক দলের মধ্যে আস্থার অভাবের কারণে দেশের শতকরা ৯০ ভাগ মানুষ বিশ্বাস করে কোনো দলীয় সরকারের অধীনে নিরপেক্ষ নির্বাচন সম্ভব নয়। তাই বিএনপিসহ ১৮ দল নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে আন্দোলন করছে। এক সময় আওয়ামী লীগ একই দাবিতে আন্দোলন করেছে। এই দাবিতে ১৭৩ দিন হরতাল দিয়েছে। স্টাফ রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন