এবার আন্তনগর জয়ন্তিকা ট্রেনে: প্রথম শ্রেণির বগীতে একদল বখাটে দ্বারা সময় চ্যানেলের সিনিয়র নিউজ ভিডিও এডিটর লাঞ্চিত

আগস্ট ১৩, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ২ বার পঠিত

এবার ঢাকাগামী আন্তনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসে ট্রেনের প্রথম শ্রেণির বগীতে টিকিটে বিহিন ভ্রমণকারী একদল বখাটে দ্বারা সময় চ্যানেলের সিনিয়র নিউজ ভিডিও এডিটর লাঞ্চিত হলেন। মঙ্গলবার দুপুরে সিলেট -আখাউড়া রেলপথের মনতলা ষ্টেশনে এ ঘটনাটি ঘটে। মুঠোফোনে অভিযোগ করে সময় চ্যানেলের সিনিয়র নিউজ ভিডিও এডিটর রাকিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, ঈদের ছুটি শেষে ১৩ আগষ্ট মঙ্গলবার ছোট বোনকে নিয়ে আন্তনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা ফিরছিলেন। তিনি সিলেট থেকে ট্রেনের প্রথম শ্রেণির -গ-বগীতে সিঙ্গেল কামরার ১,২ ও ৩ নম্বর(টিকেট নং সিএনএ ৭১৪৬৪৯০৮,৭১৪৬৪৯০৯ ও ৭১৪৬৪৯১০) সিটের টিকেট ক্রয় করেছিলেন। সকাল ১০ টায় ট্রেনটি কমলগঞ্জের ভানুগাছ ষ্টেশনে আসার পর ট্রেনে উঠে তার নির্ধারিত কামরায় কয়েকজন টিকেট বিহিন বখাটে ছেলেকে বসে থাকতে দেখে আসনগুলো ছেড়ে দিতে অনুরোধ করেন। বখাটেরা আসন ছেড়ে দিলেও ট্রেনটি দুপুরে মনতলা ষ্টেশনে যাওয়ামাত্র উল্লেখিত বখাটেরা আরও কিছু বখাটে নিয়ে এসে তাকে (রাকিবকে) লাঞ্চিত করে। বখাটেরা এক সময় রাকিবকে ট্রেন থেকে নামিয়ে নিতে চাইলে ট্রেনের অন্যান্য যাত্রী ও রেল পুলিশের হস্তক্ষেপে বখাটেরা প্রথম শ্রেণির বগী ত্যাগ করে। রাকিব আরও বলেন, এ বগীর এ্যাটেনডেন্ট টাকা নিয়ে টিকেটবিহিন যাত্রী হিসাবে বখাটেদের প্রথম শ্রেণিতে বসার সুযোগ করে দিয়েছিল। ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে রেলওয়ের কন্ট্রোলার (নিয়ন্ত্রক) জহিরুল ইসলাম মুঠোফোনে এ প্রতিনিধিকে বলেন, জয়ন্তিকা ট্রেনে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি কিছুই জানেন না। রেলওয়ের কন্ট্রোলার সাংবাদিকদের সাথে এ সম্পর্কে আর কোন কথা বলতে রাজি হননি। তবে সাংবাদিক রাকিবের বাবা ব্যবসায়ী মুর্শেদুর রহমান জানান, ঘটনার খবর শুনে শমশেরনগর ষ্টেশন মাষ্টার আব্দুল আজিজের মাধ্যমে তিনি নিজে রেলওয়ের কন্ট্রোলার জহিরুলের সাথে কথা বলেছেন। জহিরুল এ ঘটনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনেরও আশ্বাস প্রদান করেন। মুর্শেদুর রহমান আরও বলেন, দুই দিন আগে বাহির থেকে ছোড়া একটি পাথরের আঘাতে একজন প্রকৌশলীর মৃত্যূ হয়েছে। এখন আবার চলন্ত ট্রেনে বখাটে দ্বারা সাংবাদিক লাঞ্চিত হলো এতে ট্রেনে নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
এবার ঢাকাগামী আন্তনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেসে ট্রেনের প্রথম শ্রেণির বগীতে টিকিটে বিহিন ভ্রমণকারী একদল বখাটে দ্বারা সময় চ্যানেলের সিনিয়র নিউজ ভিডিও এডিটর লাঞ্চিত হলেন। মঙ্গলবার দুপুরে সিলেট -আখাউড়া রেলপথের মনতলা ষ্টেশনে এ ঘটনাটি ঘটে। মুঠোফোনে অভিযোগ করে সময় চ্যানেলের সিনিয়র নিউজ ভিডিও এডিটর রাকিবুর রহমান অভিযোগ করে বলেন, ঈদের ছুটি শেষে ১৩ আগষ্ট মঙ্গলবার ছোট বোনকে নিয়ে আন্তনগর জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস ট্রেনে ঢাকা ফিরছিলেন। তিনি সিলেট থেকে ট্রেনের প্রথম শ্রেণির -গ-বগীতে সিঙ্গেল কামরার ১,২ ও ৩ নম্বর(টিকেট নং সিএনএ ৭১৪৬৪৯০৮,৭১৪৬৪৯০৯ ও ৭১৪৬৪৯১০) সিটের টিকেট ক্রয় করেছিলেন। সকাল ১০ টায় ট্রেনটি কমলগঞ্জের ভানুগাছ ষ্টেশনে আসার পর ট্রেনে উঠে তার নির্ধারিত কামরায় কয়েকজন টিকেট বিহিন বখাটে ছেলেকে বসে থাকতে দেখে আসনগুলো ছেড়ে দিতে অনুরোধ করেন। বখাটেরা আসন ছেড়ে দিলেও ট্রেনটি দুপুরে মনতলা ষ্টেশনে যাওয়ামাত্র উল্লেখিত বখাটেরা আরও কিছু বখাটে নিয়ে এসে তাকে (রাকিবকে) লাঞ্চিত করে। বখাটেরা এক সময় রাকিবকে ট্রেন থেকে নামিয়ে নিতে চাইলে ট্রেনের অন্যান্য যাত্রী ও রেল পুলিশের হস্তক্ষেপে বখাটেরা প্রথম শ্রেণির বগী ত্যাগ করে। রাকিব আরও বলেন, এ বগীর এ্যাটেনডেন্ট টাকা নিয়ে টিকেটবিহিন যাত্রী হিসাবে বখাটেদের প্রথম শ্রেণিতে বসার সুযোগ করে দিয়েছিল। ঘটনা সম্পর্কে জানতে চাইলে রেলওয়ের কন্ট্রোলার (নিয়ন্ত্রক) জহিরুল ইসলাম মুঠোফোনে এ প্রতিনিধিকে বলেন, জয়ন্তিকা ট্রেনে এ ধরনের ঘটনা ঘটেছে বলে তিনি কিছুই জানেন না। রেলওয়ের কন্ট্রোলার সাংবাদিকদের সাথে এ সম্পর্কে আর কোন কথা বলতে রাজি হননি। তবে সাংবাদিক রাকিবের বাবা ব্যবসায়ী মুর্শেদুর রহমান জানান, ঘটনার খবর শুনে শমশেরনগর ষ্টেশন মাষ্টার আব্দুল আজিজের মাধ্যমে তিনি নিজে রেলওয়ের কন্ট্রোলার জহিরুলের সাথে কথা বলেছেন। জহিরুল এ ঘটনার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনেরও আশ্বাস প্রদান করেন। মুর্শেদুর রহমান আরও বলেন, দুই দিন আগে বাহির থেকে ছোড়া একটি পাথরের আঘাতে একজন প্রকৌশলীর মৃত্যূ হয়েছে। এখন আবার চলন্ত ট্রেনে বখাটে দ্বারা সাংবাদিক লাঞ্চিত হলো এতে ট্রেনে নিরাপত্তা নিয়ে শঙ্কা দেখা দিয়েছে। কমলগঞ্জ প্রতিনিধি॥

মন্তব্য করুন