তালামীযের মাহে রামাদ্বানের তাৎপর্য শীর্ষক সেমিনার ও র‌্যালী

জুলাই ৭, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ২ বার পঠিত

মাওলানা কমর উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেছেন, রামাদ্বান মাস মুসলমানদের আত্মশুদ্ধির মাস। এ মাসে মুসলমানরা একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য উপোস করে থাকে। এ মাসে কুরআন নাযিল হয়েছে। আগেকার নবী রাসুলগণের উম্মতদের রোজা পালনকালে কথাবার্তা বলা নিষেধ ছিল কিন্তু উম্মতে মুহাম্মদীকে সহি শুদ্ধভাবে তিলাওয়াত করার জন্য কথা বলার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এটা উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য আল্লাহ তায়ালার বিশেষ নিয়ামত। তিনি আরো বলেন, রোজা শেষে মুসলমানরা ঈদের দিনে আল্লাহর কাছে মাফি চায় কিন্তু বর্তমানে ঈদ আসার আগে থেকেই বিভিন্ন ধরনের ছায়াছবি নাটক উপন্যাস বিশেষভাবে মুক্তি দেয়া হয় এর ফলে মুসলমানের সন্তানরা এদিকে ঝুকে পড়ে। এটা পরিহার করা দরকার। বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়া মৌলভীবাজার শহর শাখার আয়োজনে ৭ জুলাই রোবাবার সকাল ১০টায় শহরের কোর্ট রোডস্থ টমি মিয়া’স রেস্টুরেন্টে ‘পবিত্র মাহে রামাদ্বানের তাৎপর্য শীর্ষক’ সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সুবহানিঘাট ডি ওয়াই কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা কমর উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী একথাগুলো বলেন। মৌলভীবাজার শহর তালামীযের সভাপতি দেলওয়ার হাসান সুমনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হাফিয রুহুল আমীনের সঞ্চলনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কেন্দ্রীয় তালামীযের সহসাধারণ সম্পাদক হাফিজ আলাউর রহমান টিপু, বিশেষ অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. আজিজুর রহমান, আল ইসলাহর স্থায়ী কমিটির সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সিদ্দিকী, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক মো. মাসুদুল ইসলাম, আল ইসলাহ নেতা মাওলানা মকবুল হোসাইন খান, মৌলভীবাজার জেলা তালামীযের সাবেক সভাপতি শফিকুল আলম সুহেল, জেলা তালামীযের সভাপতি ওয়ালিউর রহমান সানী, সম্পাদক জায়েদ আহমদ চৌধুরী প্রমুখ। সেমিনার শেষে বাদ জোহর মাহে রামাদ্বানকে স্বাগত জানিয়ে শহরে এক বিশাল র্যা লি বের করা হয়। র্যা লিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পশ্চিমবাজার জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়।
মাওলানা কমর উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী বলেছেন, রামাদ্বান মাস মুসলমানদের আত্মশুদ্ধির মাস। এ মাসে মুসলমানরা একমাত্র আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জনের জন্য উপোস করে থাকে। এ মাসে কুরআন নাযিল হয়েছে। আগেকার নবী রাসুলগণের উম্মতদের রোজা পালনকালে কথাবার্তা বলা নিষেধ ছিল কিন্তু উম্মতে মুহাম্মদীকে সহি শুদ্ধভাবে তিলাওয়াত করার জন্য কথা বলার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এটা উম্মতে মুহাম্মদীর জন্য আল্লাহ তায়ালার বিশেষ নিয়ামত। তিনি আরো বলেন, রোজা শেষে মুসলমানরা ঈদের দিনে আল্লাহর কাছে মাফি চায় কিন্তু বর্তমানে ঈদ আসার আগে থেকেই বিভিন্ন ধরনের ছায়াছবি নাটক উপন্যাস বিশেষভাবে মুক্তি দেয়া হয় এর ফলে মুসলমানের সন্তানরা এদিকে ঝুকে পড়ে। এটা পরিহার করা দরকার। বাংলাদেশ আনজুমানে তালামীযে ইসলামিয়া মৌলভীবাজার শহর শাখার আয়োজনে ৭ জুলাই রোবাবার সকাল ১০টায় শহরের কোর্ট রোডস্থ টমি মিয়া’স রেস্টুরেন্টে ‘পবিত্র মাহে রামাদ্বানের তাৎপর্য শীর্ষক’ সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে সিলেট সুবহানিঘাট ডি ওয়াই কামিল মাদরাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা কমর উদ্দিন চৌধুরী ফুলতলী একথাগুলো বলেন। মৌলভীবাজার শহর তালামীযের সভাপতি দেলওয়ার হাসান সুমনের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক হাফিয রুহুল আমীনের সঞ্চলনায় সেমিনারে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন কেন্দ্রীয় তালামীযের সহসাধারণ সম্পাদক হাফিজ আলাউর রহমান টিপু, বিশেষ অতিথি ছিলেন মৌলভীবাজার জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. আজিজুর রহমান, আল ইসলাহর স্থায়ী কমিটির সদস্য অধ্যক্ষ মাওলানা আব্দুল কাইয়ুম সিদ্দিকী, মৌলভীবাজার সরকারি কলেজের ইংরেজী বিভাগের প্রভাষক মো. মাসুদুল ইসলাম, আল ইসলাহ নেতা মাওলানা মকবুল হোসাইন খান, মৌলভীবাজার জেলা তালামীযের সাবেক সভাপতি শফিকুল আলম সুহেল, জেলা তালামীযের সভাপতি ওয়ালিউর রহমান সানী, সম্পাদক জায়েদ আহমদ চৌধুরী প্রমুখ। সেমিনার শেষে বাদ জোহর মাহে রামাদ্বানকে স্বাগত জানিয়ে শহরে এক বিশাল র্যা লি বের করা হয়। র্যা লিটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে পশ্চিমবাজার জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয়। ষ্টাফ রিপোর্টার॥

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”

মন্তব্য করুন