কুলাউড়ায় স্কুলছাত্রীকে অপহরন করে ধর্ষণ করার অভিযোগে মামলা

জুলাই ১০, ২০১৩, ১২:০০ পূর্বাহ্ণ এই সংবাদটি ৪ বার পঠিত

কুলাউড়ায় নবম শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে অপহরন করে মৌলভীবাজার নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগে ৮ জুলাই সোমবার রাতে কুলাউড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভিকটিমের বাবা মামলাটি করেন। এলাকা ও স্কুল সূত্রে জানা যায়, কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর উচ্চ বিদ্যালযের নবম শ্রেনীর জনৈক এক ছাত্রী (১৫) বাড়ী থেকে রোববার সকালে স্কুলে আসার পথে একই ইউনিয়নের লুটাবিল গ্রামের মোঃ ইউনুছ মিয়ার ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান পথিমধ্যে জোর করে সিএনজি অটো রিক্সায় তুলে মৌলভীবাজার নিয়ে এক বাসায় বিকেল ৪ টা পর্যন্ত আটকিয়ে রেখে শারিরিক নির্য়াতন করে। পরে অপহরনকারী ধর্ষক মিজানুর রহমান স্কুল ছাত্রীকে ঐদিন প্রায় সাড়ে ৫ টার দিকে কুলাউড়ার পৃথিমপাশা এলাকায় ছেড়ে দেয়। খবর পেয়ে মেয়ের পরিবারের সদস্যরা মেয়েকে উদ্ধার করে বাড়ীতে নিয়ে আসে। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনা খবর ছড়িয়ে পড়লে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে, তারা ধর্ষককে গ্রেফতারের মাধ্যমে শাস্তি দাবী করেছেন। এ ব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আনোয়ার ও রাজনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওমর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তারা বিচারের দাবী করছেন। ভিকটিমের বাবা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মিজানুর রহমান মেয়েকে স্কুলে যাওয়ার পথে উত্যক্ত করে আসছিল, রোববার সকালে স্কুলে আসার পথে তার মেয়েকে জোর করে সিএনজি অটো রিক্সায় তুলে মৌলভীবাজার নিয়ে এক বাসায় বিকেল পর্যন্ত আটকিয়ে রেখে শারীরিক নির্যাতন করে মিজানুর। তিনি অবিলম্বে এ ঘটনার সুষ্ট বিচার দাবী করেন। এ ব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী মোহাম্মদ শামছুল ইসলাম বলেন তিনি এ ঘটনায় অবগত হয়েছেন। আইনী প্রক্রিয়ায় তদন্তের মাধ্যমে এর সুষ্ট বিচার হবে।
কুলাউড়ায় নবম শ্রেনীর এক স্কুল ছাত্রীকে অপহরন করে মৌলভীবাজার নিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগে ৮ জুলাই সোমবার রাতে কুলাউড়া থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভিকটিমের বাবা মামলাটি করেন। এলাকা ও স্কুল সূত্রে জানা যায়, কুলাউড়া উপজেলার পৃথিমপাশা ইউনিয়নের রাজনগর উচ্চ বিদ্যালযের নবম শ্রেনীর জনৈক এক ছাত্রী (১৫) বাড়ী থেকে রোববার সকালে স্কুলে আসার পথে একই ইউনিয়নের লুটাবিল গ্রামের মোঃ ইউনুছ মিয়ার ছেলে মোঃ মিজানুর রহমান পথিমধ্যে জোর করে সিএনজি অটো রিক্সায় তুলে মৌলভীবাজার নিয়ে এক বাসায় বিকেল ৪ টা পর্যন্ত আটকিয়ে রেখে শারিরিক নির্য়াতন করে। পরে অপহরনকারী ধর্ষক মিজানুর রহমান স্কুল ছাত্রীকে ঐদিন প্রায় সাড়ে ৫ টার দিকে কুলাউড়ার পৃথিমপাশা এলাকায় ছেড়ে দেয়। খবর পেয়ে মেয়ের পরিবারের সদস্যরা মেয়েকে উদ্ধার করে বাড়ীতে নিয়ে আসে। পরে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করে। এ ঘটনা খবর ছড়িয়ে পড়লে স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে, তারা ধর্ষককে গ্রেফতারের মাধ্যমে শাস্তি দাবী করেছেন। এ ব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ আনোয়ার ও রাজনগর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ওমর আলী ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে তারা বিচারের দাবী করছেন। ভিকটিমের বাবা অভিযোগ করে বলেন, দীর্ঘদিন ধরে মিজানুর রহমান মেয়েকে স্কুলে যাওয়ার পথে উত্যক্ত করে আসছিল, রোববার সকালে স্কুলে আসার পথে তার মেয়েকে জোর করে সিএনজি অটো রিক্সায় তুলে মৌলভীবাজার নিয়ে এক বাসায় বিকেল পর্যন্ত আটকিয়ে রেখে শারীরিক নির্যাতন করে মিজানুর। তিনি অবিলম্বে এ ঘটনার সুষ্ট বিচার দাবী করেন। এ ব্যাপারে কুলাউড়া উপজেলা নির্বাহী মোহাম্মদ শামছুল ইসলাম বলেন তিনি এ ঘটনায় অবগত হয়েছেন। আইনী প্রক্রিয়ায় তদন্তের মাধ্যমে এর সুষ্ট বিচার হবে। কুলাউড়া অফিস :

মন্তব্য করুন