কুলাউড়ায় বিনা মেঘে ডুবে গেলো খেলার মাঠ

ফেব্রুয়ারী ১২, ২০১৯, ৯:২১ অপরাহ্ণ এই সংবাদটি ৯৯ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধি॥ বৃষ্টি নেই তবুও পানি থৈ থৈ করছে খেলার মাঠে। কুলাউড়া উপজেলা সদরের একমাত্র প্রধান খেলার মাঠ হলো নবীন চন্দ্র সরকারি মডেল উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠ। এই মাঠেই চলছে উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার আয়োজনে বৃহৎ প্রিমিয়ার ক্রিকেট লীগ ২০১৯। এ অবস্থায় খেলায় চরম বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছে মাঠে বৃষ্টিহীন পানি! নিয়মিত সব ধরনের খেলাধুলা অনুষ্ঠিত হয় এই মাঠে। এছাড়া জাতীয় দিবসগুলোর বিভিন্ন কর্মসূচী এই মাঠে বর্ণাঢ্যভাবে আয়োজন করা হয়। অথচ নিত্য প্রয়োজনীয় বিশাল এ মাঠটি যেন এখন অভিভাবকশূন্য। সঠিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় বৃষ্টি ছাড়াই মাঠটিতে জমে আছে পানি। যার ফলে খেলাধুলার অনুপযোগী হয়ে পড়েছে মাঠটি। বর্তমানে প্রিমিয়ার ক্রিকেট লীগ বন্ধ রয়েছে। ক্রীড়াপ্রেমীদের পোহাতে হচ্ছে চরম দূর্ভোগ। পানি নিষ্কাশনে সঠিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় এমনটি হয়েছে বলে মনে করছেন কুলাউড়ার কয়েক ক্রিকেট অঙ্গণের কয়েক শতাধিক খেলোয়াড়ররা। এ নিয়ে অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পৌর কর্তৃপক্ষকে দোষারোপ করে বিভিন্ন ধরণের মন্তব্য করেছেন।

জানা যায়, ৯ ফেব্র“য়ারি শনিবার মাঠের পাশ দিয়ে একটি পুকুর সেচের পানি নির্মিত ড্রেন উপচে প্রবেশ করে। দেখে মনে হচ্ছিল বৃষ্টির ফলে পানি ডুকেছে। ড্রেন দিয়ে এ পানি অন্যত্র চলে যাবার কথা থাকলেও সঠিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় পানি মাঠের ভিতরে প্রবেশ করে এ জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়েছে।

এ দিকে মাঠে পানি থাকায় টুর্নামেন্ট পরিচালনা কমিটি পড়েছেন বিপাকে। টুর্নামেন্ট শেষ করা নিয়ে রয়েছেন দুঃচিন্তায়। খেলোয়াড়রাও রয়েছেন মহাভাবনায়। কয়েকজন ক্রীড়া প্রেমীরা প্রথম শ্রেণীর পৌরসভাকে কে দায়ী করে বলেন, পৌর কর্তৃপক্ষ কি ঘুমিয়ে আছেন? না কি দিবা স্বপ্নে বিভোর ? আমাদের জানা নেই। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী ডিফেন্ট ক্লাবের  কর্মকর্তা মুহিত ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কোন বৃষ্টি ছাড়া মাঠে হাবুডুবু খাচ্ছে পানি। তিনি বলেন টিম গঠন করতে অনেক টাকা খরচ করেছি। টুর্নামেন্ট বন্ধ হয়ে গেলে আমাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে।

গাজীপুর ক্রিকেট ক্লাবের প্রধান উপদেষ্ঠা সাইফুল ইসলাম কাদির বলেন, কুলাউড়ার ঐতিহ্যবাহী খেলার মাঠটি পানির জন্য বন্ধ হওয়ায় কুলাউড়ার ক্রীড়াঙ্গণে একটি খারাপ দৃষ্টান্ত রচিত হলো। এ মাঠ থেকে জাতীয় দলে আবুল হাসান রাজুসহ অনেক খেলোয়াড জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে সফলতা অর্জন করছে।

জাতীয় দলের ক্রিকেটার আবুল হাসান রাজু বলেন, এই মাঠ থেকে আমার উত্থান। গাজীপুর ক্রিকেট ক্লাবের হয়ে এই মাঠে খেলেই আজ আমি জাতীয় দলের রাজু। কুলাউড়ার এই প্রধান খেলার মাঠে সবাই নিয়মিত খেলাধুলা করে থাকে। কিন্তুু পানির কারণে একটি টুর্ণামেন্ট বন্ধ রয়েছে এটা খুবই খারাপ বিষয়। এ বিষয়ে পৌর কর্তৃপক্ষকে দ্রুত পানি নিষ্কাষণের জন্য আহবান জানাচ্ছি।

উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ সিপার উদ্দিন আহমদ বলেন, কুলাউড়া ক্রীড়াঙ্গণের বড়ই দূর্ভাগ্য। পরিকল্পিত ড্রেনেজ ব্যবস্থা না থাকায় এই মাঠে প্রতিটি ইভেন্টে খেলা শুরুর আগে অনেক টাকা খরচ করে অনেক কষ্টের বিনিময়ে মাঠ প্রস্তুুত করতে হয়। হঠাৎ বৃষ্টিহীন পানির কারণে মাঠের অবস্থা খারাপ হয়ে যাওয়ায় খেলা স্থগিত রাখা হয়েছে। মাঠ সচল হতে আরো সপ্তাহখানেক সময় প্রয়োজন। পৌরসভার মেয়রকে সাথে সাথে বিষয়টি অবগত করা হলেও এখনো কোন সুরাহা হয়নি। টুর্নামেন্টে অংশগ্রহণকারী দলগুলো প্রচুর অর্থ ব্যয় করে টীম গঠন করে। অথচ সামান্য ড্রেনেজ ব্যবস্থার অভাবে এতো সুন্দর আয়োজন নষ্ট হতে চলেছে।

কুলাউড়া পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব শফি আলম ইউনুছ বলেন, খেলার মাঠের পানি নিষ্কাষণের জন্য আমার লোকদের বলে দিয়েছি তারা জরুরী ভিত্তিতে এটা করে দেবে। এবং মাঠের পাশে ড্রেনেজর যে সমস্যা রয়েছে সেটারও স্থায়ী সমাধান করা হবে।

কুলাউড়া উপজেলা নিবার্হী অফিসার ও ক্রীড়া সংস্থার সভাপতি মুহাম্মদ আবুল লাইছ বলেন, পৌর মেয়রের সাথে আমার বিষয়টি নিয়ে কথা হয়েছে। তিনি লোক লাগিয়ে পানি নিষ্কাষণের ব্যবস্থা করবেন।

সংবাদটি শেয়ার করতে নিচের “আপনার প্রিয় শেয়ার বাটনটিতে ক্লিক করুন”